মহানগরশিরোনাম

নগরীতে তুচ্ছ ঘটনায় যুবককে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩

নিজেস্ব প্রতিবেদকঃ রাজশাহীর রামচন্দ্রপুর মিরেরচক এলাকায় তুচ্ছ ঘটনার জেরে ফুফাতো ভাইদের মারধরে মনিরুল ইসলাম লিটন (৩৪) নামের এক যুবক নিহত হয়। মঙ্গলবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে তাকে মারধর করা হয়।পরে  দিনগত রাত ১ টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে।

গত সোমবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে তাকে রাস্তায় ময়লা ফেলা নিয়ে ফুফাতো ভাইয়ের বউ সোমার সাথে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে সোমার দেবর মনোয়ার, ময়নুল ও সোমাসহ অন্যরা মিলে লিটনকে বেধড়ক মারধর করে বলে প্রত্যক্ষদর্শী একই এলাকার মানিক ও বড় ভাই আমিরুল ইসলাম রঞ্জু জানান।  তারা বলেন, আসামীরা লোহার রড, জিআই পাইপ, লোহার হাতুরী, বাঁশের লাঠি ও হাত দিয়ে কিলঘুষি মারে। এতে লিটন অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয় সিটি হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার পর সামান্য ভালবোধ করলে পরিবারের লোকজন বাড়ি নিয়ে আসেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১ টার দিকে অবস্থার আরো অবনতি হলে রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নিয়ে আসলে রাত ২.৩০টার দিকে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষনা করেন বলে রঞ্জু জানান। এ ঘটনায় বোয়ালিয়া মডেল থানায় ৯ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান তিনি। আসামীরা হলেন, বাবুর স্ত্রী হাসিনা আকতার, মৃত আজিজুল হকের ছেলে ময়নুল হক, মনোয়ারুল হক, মঞ্জুরুল হক ও মাহমুদুল হক, ময়নুল হকের স্ত্রী রিক্তা, মাহমুদুল হকের স্ত্রী সোমা , মুজাহিদুল হকের স্ত্রী শিল্পি ও শিরোইল কাঁচাবাজারের বাবু।

বোয়ালিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমান উল্লাহ মামলা হয়েছে বলে জানান। তিনি আরো বলেন, নিহত লিটনের মরদেহ ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। রিপোর্ট আসলে অন্যান্য পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এদিকে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মাহমুদ, রিক্তা ও শিল্পী নামের তিনজনকে আটক করা হয়েছে বলে তিনি নিশ্চিৎ করেন। আসামীদেরকে কোর্টে পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানান। এদিকে লিটনকে হত্যা করায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পুলিশ দিনভর পাহাড়া দিয়ে রাখেন। জানাযা পর্যন্ত পুলিশকে সেখানেই দেখা যায়।বরেন্দ্র বারতা/ফকবা/এই

Close