মোহনপুর

আমি ও বাদশা ভাই রাজশাহীকে অনেক দূরে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই : মেয়র লিটন

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি: ১৪ দল রাজশাহীর সমন্বয়ক, মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি কর্পোরেশনের মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, বাদশা ভাই এমপি নির্বাচিত হলে রাজশাহীর উন্নয়ন দ্রুত হবে। আমি ও বাদশা ভাই দুইজন মিলে রাজশাহীকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। তাই রাজশাহীর উন্নয়নের স্বার্থে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করুন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মহানগরীর সাধুরমোড়ে রাজশাহী-২ (সদর) আসনের মহাজোটের প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশার নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন আরো বলেন, গত ১০ বছরে বাংলাদেশে যে উন্নয়ন হয়েছে, অনেক দেশ ৪০ বছরেও তা পারেনি। উন্নয়নের এই অগ্রযাত্রা অব্যহত রাখতে আবারো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় আনতে হবে। রাজশাহীতে যেসব সরকারি শিল্প কারখানা বন্ধ আছে। সেগুলো নির্বাচনের পর সচল করা হবে।

তিনি আরো বলেন, বিএনপির জিয়াউর রহমান দেশকে পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিল। কিন্তু আমরা বেঁচে গেছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে পাকিস্তান হওয়া থেকে বাঁচিয়েছেন।

মেয়র আরো বলেন, রাজাকার, অন্ধকারের কীটেরা সুযোগের অপেক্ষায় আছে। তাদের ব্যাপারে সর্তক থাকতে হবে।

মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি লিটন আরো বলেন, মাইকে প্রচার করা হচ্ছে, রাজশাহীতে গ্যাস এনেছে কে? ওমুক ভাই, রাজশাহীর সব উন্নয়ন করেছে কে? ওমুক ভাই। আমি কিছু বলছি না, শুধু তাদের মিথ্যাচার শুনছি। মিথ্যাচার করে মানুষকে আর বোকা বানানো যাবে না। আগামী ৩০ ডিসেম্বর মানুষ এই মিথ্যাচারের জবাব দেবে।

নির্বাচনী সভায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশা বলেন,  আমরা কিছু বুঝি না, শুধু রাজশাহীর উন্নয়ন চাই। মিনুর আমলে উন্নয়ন তো হয়নি, বরং ৩০ বছর পিছিয়েছে রাজশাহী। বিএনপির আমলে রেশম কারখানা বন্ধ হয়, বিমানবন্দর বন্ধ হয়। আমরা সেগুলো সচল করেছি। শেখ হাসিনা যতদিন প্রধানমন্ত্রী থাকবেন, বাংলাদেশের মানুষ ততদিন সুখে থাকবে।

তিনি আরো বলেন, নৌকা মার্কায় ভোট দিলে প্রধানমন্ত্রী হবেন শেখ হাসিনা। ধীনের শীষে ভোট দিলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন কেউ জানে না। ধানের শীষে ভোট দেয়া মানে ভোট পানিতে ফেলা।

ওয়ার্কাস পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা আরো বলেন, আমার ও লিটন ভাইয়ের একসাথে উন্নয়ন কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে। আগামীতেও দুইভাই একসাথে উন্নয়নের চাকা সামনের দিকে এগিয় নিয়ে যেতে চাই।  রাজশাহীকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

নগরীর মতিহার থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আসলাম সরকারসহ ১৪দল ও মহাজোটের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। সভার স ালনায় ছিলেন মতিহার থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিন।#

নগরীর ১৪নং ওয়ার্ডে মিনুর গণসংযোগ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আজ মঙ্গলবার বিকেল ৪টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজশাহীর ১৪ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য এবং রাজশাহী সদর আসনের ধানের শীষের প্রার্থী জননেতা মিজানুর রহমান মিনু। গণসংযোগের সময় সহস্রাধিক নেতাকর্মী ও সমর্থকগণ উপস্থিত ছিলেন। তারা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, গণতন্ত্র পুণরুদ্ধার ও দেশের মানুষের অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য তারা ধানের শীষে ভোট দেওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দেন। এসময়ে অত্র এলাকা মিছিলের নগরীতে পরিণত হয়। তারা বিলসিমলা মাঠ থেকে শুরু করে তের খাদিয়াসহ বিভিন্ন রাস্তা, পাড়া, মহল্লায় মিছিল নিয়ে যান। সে সময়ে জনগণকে মিনুকে হাত নেড়ে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান। সেইসাথে ধানের শীষের পক্ষে তারা স্লোগান দেন এবং ভোট দেবেন বলে জানান।

প্রার্থী নিজেও বিভিন্ন ভোটারের সাথে কুশল বিনিময় ও ধানের শীষে  ভোট প্রার্থনা করেন। সেইসাথে তিনিও হাত নেরে ভোটারদের শুভেচ্ছা জানান। মিছিল ও গণসংযোগে উপস্থিত ছিলেন মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি ও ধানের শীষের প্রধান এজেন্ট ওয়ালিউল হক রানা, শাহ্ মখ্দুম থানা বিএনপি’র সভাপতি মনিরুজ্জামান শরীফ, ১৪ নং ওয়ার্ড সাবেক কাউন্সিলর টুটুল, মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম আহবায়ক অধ্যাপিকা সখিনা বেগম ও মহিলা কাউন্সিলর সামসুন্নাহার , সাবেক নাসিরা খানম, জরিনা বেগম, মহানগর যুবদলের সহ-সভাপতি আবু হেনা মোহাম্মদ রান্টু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাশেম শেখ, যুবনেতা রব্বাণী, কেন্দ্রীয় ছাত্র দলের সদস্য ইলিয়াস বিন কাশিম, মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, মহানগর সংগ্রামী দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন আনন, মহানগর ছাত্র দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাহিনসহ অত্র ওয়ার্ড বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী ও সমর্থকগণ। বরেন্দ্র বার্তা/হাপি

Close