উন্নয়ন বার্তা

রাজশাহীতে তামাকবিরোধী জোটের ত্রৈমাসিক সভা

প্রেসবিজ্ঞপ্তি: সময়ের প্রয়োজনে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের কিছু কিছু ধারা সংশোধন করা জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী অঞ্চলের তামাকবিরোধী জোট (আত্মা) এর সদস্যরা। আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে এ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেডেলপমেন্ট-এসিডি’র প্রধান কার্যালয়ে এন্টি টোব্যাকো মিডিয়া এলায়েন্স(আত্মার) ত্রৈমাসিক সভায় তারা এমন মন্তব্য করেছেন।
সভায় বক্তারা বলেন- শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, রেলওয়ে স্টেশন, বাসস্ট্যান্ড, হাসপাতাল ইত্যাদি পাবলিক প্লেসের অন্তত ২০০ গজের আশেপাশে কোনো তামাকপণ্যের দোকান রয়েছে।

আইনে পাবলিক প্লেসের কত দূরত্বে তামাক পণ্যের দোকান থাকবে এমন বিধান না থাকার সুযোগ নিয়ে রাজশাহী বিভাগের প্রায় সকল জেলার পাবলিক প্লেসের ভেতরেই দেদারছে তামাকপণ্য বিক্রি হচ্ছে, ধূমপায়ীরা বিনা বাধায় এসব পাবলিক প্লেসে ধূমপান করলেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। আইনে শাস্তির বিধান থাকলেও তা একেবারে অপ্রতুল।প্রশাসনের উদাসীনতায় শাস্তির সেই বিধানও প্রয়োগ হচ্ছে না। এজন্য আইনের কিছু ধারা সময়ের প্রয়োজনে সংশোধন, পরিমার্জন, সংযোজন ও বিয়োজনের পাশাপাশি তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ ঘটাতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান তারা।
বক্তারা আরও বলেন, শ্রীলঙ্কার ১৪৩টি শহরে তামাকপণ্য বিক্রি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে সে দেশের ব্যবসায়ীরা। আমাদের পার্শ্ববর্তী ভারতেও পাবলিক প্লেসে ধূমপান নিষিদ্ধ। বাংলাদেশেও পাবলিক প্লেসে ধূমপান বন্ধ করা সম্ভব। এজন্য দরকার সরকার ও প্রশাসনের একটু কার্যকরি উদ্যোগ।তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনে তামাকের কোনো প্রকার বিজ্ঞাপন, উপহার সামগ্রী, উপঢৌকন ইত্যাদির বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তামাক কোম্পানীগুলো প্রকাশ্যে বিজ্ঞাপন প্রচারসহ উপহার সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধে প্রশাসন তেমন কোন কার্যকরি ব্যবস্থা নিচ্ছে না। বক্তারা তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নে প্রত্যেক জেলা প্রশাসককে (ডিসি) মোবাইল কোর্ট পরিচালনার পাশাপাশি থানায় নিয়মিত মামলা গ্রহনের মাধ্যমে
প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

সভায় বক্তারা আরও বলেন- বর্তমানে দেখা যাচ্ছে, বাংলাদেশের জনস্বাস্থ্য খাত আরও একটি বহুজাতিক তামাক কোম্পানির আগ্রাসনের স্বীকার হতে চলেছে। জাপান টোব্যাকো ইনকরপোরেশন (জেটিআই) ইতোমধ্যে বৈদেশিক বিনিয়োগের নামে ১.৪৭ বিলিয়ন ইউএস ডলারের বিনিময়ে আকিজ গ্রুপের মালিকানায় থাকা ইউনাইটেড টোব্যাকো কোম্পানি লিমিটেড (ইউডিটিসি) অধিগ্রহণ সম্পন্ন করেছে। এক্ষেত্রে বহুজাতিক তামাক কোম্পানির বিনিয়োগ খানিকটা বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। তামাক নিয়ন্ত্রন আইন বাস্তবায়নের সুনির্দিস্ট কর্মপরিকল্পনা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ২০৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে সম্পূর্ণ তামাকমুক্ত ঘোষণার রোডম্যাপের অভাবে এমন বিদেশি কোম্পানির আগ্রাসন হচ্ছে বলে মত প্রকাশ করেন তামাকবিরোধী মিডিয়া জোট’র সদস্যরা।

এসিডি’র এ্যাডভোকেসি অফিসার শরিফুল ইসলাম শামীমের সঞ্চলনায় সভার শুরুতেই শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন- এসিডির প্রোগ্রাম ম্যানেজার মো. আলী হোসেন। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন আত্মা’র কেন্দ্রীয় বিভাগীয় প্রতিনিধি ও বাংলা নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম’র জ্যেষ্ঠ প্রতিনিধি শরীফ সুমন, বাসস সিনিয়র রিপোর্টার ড. আইনুল হক, এসএ টিভি নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি মামুনুর রশিদ বাবু, যমুনা টিভির নওগাঁ প্রতিনিধি শফিক ছোটন, দৈনিক নতুন প্রভাতের বার্তা সম্পাদক সোহেল মাহবুব, দৈনিক আমাদের রাজশাহীর চীফ রিপোর্টার জিয়াউল হক জিয়া, বাংলাভিশন’র রাজশাহী প্রতিনিধি পারিতোষ চৌধুরী আদিত্য, সময় টিভি বগুড়ার প্রতিনিধি মাজেদুর রহমান, নওগাঁর গণমানুষের খবর সম্পাদক মো. আক্কাস আলী, দৈনিক সোনারদেশ’র গোদাগাড়ী উপজেলা প্রতিনিধি আলমগীর কবির তোতা, বাংলা ট্রিবিউন ও দৈনিক সোনারদেশ’র বার্তা সম্পাদক দুলাল আবদুল্লাহ, এসিডি’র মিডিয়া ম্যানেজার আমজাদ হোসেন শিমুল, প্রোগ্রাম অফিসার কৃষ্ণা রানী, তুহিন ইসলাম প্রমুখ।

বক্তারা আরও বলেন, শ্রমিক কল্যানে অর্থ সহায়তার অজুহাতে তামাক কোম্পানি শ্রম মন্ত্রনালয়ের কাছ থেকে নানাবিধ জনস্বাস্থ্য ও শ্রমস্বার্থ বিরোধী সুবিধা আদায় করছে, যা তামাকমুক্ত বাংলাদেশ অর্জনের পথে বিরাট অন্তরায়। শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয়ের অধীনস্ত ‘বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যান ফাউন্ডেশন’ বহুজাতিক তামাক কোম্পানি ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানি (বিএটিবি) এর কাছ থেকে ২ অক্টোবর ২০১৮ তারিখ পর্যন্ত ২৩ কোটি ৭ লাখ ৬১ হাজার ৪৮০ টাকা অনুদান গ্রহণ করেছে। তামাক কোম্পানির কাছ থেকে এ ধরনের অনুদান গ্রহণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (এফসিটিসি)র অর্টিক্যাল ৫.৩ এর সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এর পাশাপাশি চলছে সিনেমা নাটকে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন লঙ্ঘন করে ধূমপানের দৃশ্য। সম্প্রতি রাষ্ট্রীয়
অনুদান প্রাপ্ত সিনেমা ‘দেবী’র মিসির আলী চরিত্রে অভিনীত চঞ্চল চৌধুরী একাধিকবার ধূমপানের দৃশ্যে অভিনয় করেছেন। ছবি প্রদর্শনে মানা হয়নি তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন। একই চিত্র রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নির্মিত ‘দহন’ ছবির ক্ষেত্রেও। নতুন বিনিয়োগের নামে তামা কোম্পানিকে ব্যবসা সম্প্রসারণের সুযোগ প্রদান তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকারের সাথে সাংঘর্ষিক বলে সভার বক্তারা মনে করেন। বরেন্দ্র বার্তা/ নাসি

Close