উন্নয়ন বার্তামহানগর

জানুরায়ী মাসে রাজশাহী জেলায় নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে ২৮টি

প্রেসবিজ্ঞপ্তি: রাজশাহী জেলার মহানগর ও নয়টি থানায় জানুয়ারি মাসে মোট ২৮টি নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে নারী  নির্যাতনের ঘটনা ঘটে ২১টি ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটে ০৭টি। স্থানীয় ও জাতীয় সংবাদপত্রসমূহ এবং এসিডির নিজস্ব প্রাপ্ত তথ্যের উপর ভিত্তি করে এই জরিপ পরিচালিত হয়েছে।
এই মাসের নারী ও শিশু নির্যাতনের আলোচিত ঘটনা ছিল ০২ জানুয়ারি ২০১৯ ইং রাজশাহী নগরীতে পাষ- স্বামীর নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ, ০৪
জানুয়ারি দূর্গাপুরে কলেজছাত্রী ধর্ষিত ও অভিযুক্ত গ্রেপ্তার, ০৯ জানুয়ারি ২০১৯ ইং তারিখে বাঘায় প্রবাসীর স্ত্রীর আত্মহত্যা, ১০ জানুয়ারি
দুর্গাপুরে ধর্ষণের শিকার ছাত্রী ওসিসিতে ভর্র্তি, ১৩ জানুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রী অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি, ১৮ জানুয়ারি তানোরে মা-
মেয়েকে মারপিট, ২২ জানুয়ারি বাঘায় সুপার ভ্যাসমল তেল পান করে নারীর আত্মহত্যা, ৩০ জানুয়ারি পুঠিয়ার বানেশ্বরে শিশুর সামনে পেট্রোল ঢেলে
মায়ের গায়ে দুর্বৃত্তদের আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

জেলায় গত মাসে ২১ টি নারী নির্যাতনের খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে মহানগরীতে ১১টি। মহানগরীর বাহিরের উপজেলাসমূহে সংঘটিত হয়েছে ১০ টি নির্যাতনের ঘটনা। এর মধ্যে বাঘায় ৪টি , পুঠিয়ায় ০৩টি, তানোরে ০২টি এবং দুর্গাপুরে ১টি নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। তবে বাগমারা, চারঘাট,
গোদাগাড়ি, পবা, মোহনপুর থানা এলাকায় কোন নির্যাতনের খবর পাওয়া যায়নি।এর মধ্যে হত্যার চেষ্টা ০৪টি, ধর্ষণ ১টি, অপহরণ ৪টি, এসিড নিক্ষেপ ১টি, আত্মহত্যা ০৬টি, আত্মহত্যার চেষ্টা ৩টি এবং অন্যান্য ২ ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া জেলায় গত মাসে শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটে ০৭টি। এর মধ্যে মহানগরীতে সংগঠিত হয়েছে ০৩ টি এবং মহানগরীর বাহিরের ৯টি উপজেলায়

সংঘটিত হয়েছে ০৪টি। এর মধ্যে বাঘা টি, মোহনপুরে ১টি এবং দুর্গাপুরে ১টি শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। পবা, চারঘাট, পুঠিয়া, তানোর এবং
বাগমারা থানায় কোনো শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেনি। এ মাসে শিশু ধর্ষণ ২টি, ধর্ষণের ১টি, এবং অপহরণের ঘটনা ঘটেছে ৩টি। বরেন্দ্র বার্তা/ নাসি

Close