বাগমারাশিক্ষাঙ্গন বার্তাশিরোনাম

বাগমারায় প্রকাশ্যে ছাত্রকে মারলেন অধ্যক্ষ লজ্জায় আত্মহত্যার চেষ্টা শিক্ষার্থীর

বাগমারা প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার নরদাশ ইউনিয়নের পানিয়া নরদাশ  ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে জুতা দিয়ে ছাত্রকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে। এলাকা সুত্রে জানা যায় যে পানিয়া নরদাশ কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম সারওয়ার ( আবুল) তার কলেজের একাদশ শ্রেনীতে  পড়ুয়া নরদাশ গ্রামের এসকেন্দারের ছেলে সাউরান (২০) কে গত ২৯ জানুয়ারী কলেজ চলাকালীন সকাল ১১টার সময় মাঠের মধ্যে ডেকে নিয়ে জুতা দিয়ে পিটিয়েছেন। এবিষয়ে সাউরান জানায়, স্যার আমাকে ডাকলে আমি স্যারের কাছে যায়, যাওয়ার পর স্যার আমার সাথে কোন কথা না বলে পা থেকে জুতা খুলে সবার সামনে কলেজের মাঠের মধ্যে আমাকে মারতে থাকেন। কেন বা কি কারনে স্যার আমাকে মেরেছেন তা আমি জানি না।তবে আমার সকল সহপাঠী ও শিক্ষকদের সামনে অধ্যক্ষ সার আমাকে মারায় আমি সকলের কাছে লজ্জিত, আর এ লজ্জা সাইতে  না পেরে আমি বিষ পান করে আত্নহত্যার পথ বেছে নিই।

বিষ পানের পর তাকে নরদাশ গ্রামের ডাক্তার বাবুলের কাছে ঢাক মোড়ে নিয়ে গেলে তিনি চিকিৎসা করেন এবং ২২০০০ হাজার টাকা চিকিৎসা বিল করেন বলে জানান বাবুল। কিন্তু পরে সাউরানের  অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাকে বাগমারা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করানো হয়। ছাত্রের সাথে অধ্যক্ষের এমন অমানবিক আচরন করার কারনে অত্র কলেজের ছাত্র- ছাত্রী,শিক্ষকসহ এলাকার অনেকেই দুঃখ প্রকাশ করে তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।সাউরানের বড় ভাই শাহিন আলম (সদু) বলেন, বিনা অপরাধে আমার ভাই কে অধ্যক্ষ স্যার সকলের সামনে জুতা দিয়ে পেটানোর কারনে আমরা তার বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিবেন তারা। অধ্যক্ষ গোলাম সারওয়ার ( আবুল) এর সাথে কথা বললে তিনি এবিষয়ে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এবিষয়ে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাসিম আহম্মেদ  এর সাথে কথা বললে তিনি বলেন আমার কাছে এখনো এবিষয়ে কোন অভিযোগ আসেনি।

বরেন্দ্র বার্তা/আহো/হাপি

Close