মহানগরশিরোনাম

রাজশাহীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপিত

নিজস্ব প্রতিবেদক : সারাদেশের মত রাজশাহীতেও যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হলো ঐতিহাসিক ৭ মার্চ।উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দিনভর কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ। এ আওয়ামী লীগের প্রতিটি ওয়ার্ড কার্যালয় থেকে বঙ্গবন্ধু সেই ঐতিহাসিক ভাষণ প্রচার করা হচ্ছে।

মহানগর আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে বৃহস্পতিবার সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় কুমারপাড়ায় থাকা দলীয় কার্যালয়ের পাশে স্বাধীনতা চত্বরে মহানগর, থানা ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।
এর আগে সকালে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করা হয় এবং দিনব্যাপী মাইকে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার হচ্ছে।৭ মার্চ
কর্মসূচিতে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, সহ-সভাপতি বদরুজ্জামান রবু, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আসাদুজ্জামান ও দলীয় নেতাকর্মীরা অংশ নেন।
এদিকে রাজশাহী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে মাইকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার করা হচ্ছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও মুক্তিযুদ্ধের প্রামাণ্য চিত্র এবং মুক্তিযুদ্ধের পুস্তক ইত্যাদি প্রদর্শন করা হচ্ছে।

এছাড়া আলাদাভাবে দেশের অন্যতম বিদ্যাপিঠ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়সহ মহানগরীর সব শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে এবার অনেকটা ভিন্ন আবহে পালিত হচ্ছে ঐতিহাসিক এই দিনটি।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালি বের হয় এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। র‌্যালিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ, আবাসিক হল, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ অংশ নেয়।৭ মার্চ

৭ মার্চ দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার মুক্তমঞ্চে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম আব্দুস সোবহান বলেন,‘বঙ্গবন্ধু কলকাতা ইসলামিয়া কলেজে ছাত্র রাজনীতি করার সময় যে পাকিস্তানি নেতারা তার পক্ষে ছিল, পরবর্তীতে তারাই তার বিরোধীতা করে। বঙ্গবন্ধু না থাকলে বাংলা ভাষা বিলীন হয়ে যেতে পারতো, বঙ্গবন্ধুর অবদান কোন অংশে কম নয়। যার ঋণ কখনো বাঙালি জাতি শোধ করতে পারবে না। ৭ মার্চের ভাষণেই বাংলাদেশের ভিত্তি স্থাপন হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু না থাকলে বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিলীন হয়ে যেতে পারতো। বঙ্গবন্ধুর অবদানেই আজকের বাংলাদেশ বিনির্মাণ।’

দিবসটি  উপলক্ষে রাজশাহীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসভায় মুক্তিযোদ্ধারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ, বঙ্গবন্ধু জীবনী, মুক্তিযুদ্ধের গল্প বা ইতিহাস শিক্ষার্থীদের মাঝে তুলে ধরেন।বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close