পাবনাশিরোনাম

অবশেষে মৃত্যুর কাছে পরাজিত হলেন পাবনার অগ্নিদ্ধ গৃহবধু সোজি খাতুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাঁচ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর অবশেষে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের দেয়া আগুনে দগ্ধ গৃহবধূ সোজি খাতুনের (৩২) মৃত্যু হয়েছে।
ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন থেকে মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়। আগুনে নিহতের শরীরের প্রায় ৬০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল।
প্রবাসী স্বামীর পাঠানো টাকা নিয়ে ঝগড়ায় গত বৃহস্পতিবার ভোরে আমিনপুর থানার তালিমনগর গ্রামে সোজির গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন।
গুরুতর আহতাবস্থায় তাকে প্রথমে পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, পরে অবস্থার অবনতি হলে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়। টানা পাঁচ দিন চিকিৎসাধীন থেকে মঙ্গলবার রাতে তার মৃত্যু হয়।
নিহত গৃহবধূর ভাই সাগর মণ্ডল জানান, গত বৃহস্পতিবার প্রবাসী স্বামীর পাঠানো টাকা নিয়ে ঝগড়ার একপর্যায়ে সোজির গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। আগুনে বোনের শরীরের প্রায় ৬০ শতাংশ পুড়ে যায়।
ভাইয়ের অভিযোগ, সোজির দেবর, ননদ, শাশুড়ি এবং ভাশুরের বউ মিলে বোনকে পুড়িয়ে মেরেছে।
আমিনপুর থানার ওসি মো. মমিনুল ইসলাম জানান, গৃহবধূর মৃত্যুর খবর পেয়েছি। ঘটনার দিনই আমিনপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় একজন গ্রেফতার করা হয়েছে।বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close