আন্তর্জাতিক

বিদ্যাসাগরের মূর্তি ধ্বংসে উত্তাল পশ্চিমবঙ্গ

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক: মঙ্গলবার কলকাতায় অমিত শাহের রোড শো-তে নিজেদের ক্ষমতা আস্ফালন দেখাতে গিয়ে রীতিমতো তাণ্ডব চালাল বিজেপি। এদিন শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজে ছিলেন গেরুয়া দলের কর্মী-সমর্থকরা। রোড শো শুরুর আগে ধর্মতলায় নির্বাচন কমিশনের গাড়িতে ভাংচুর চালানো হয়। তবে এই সমস্ত কিছুকে ছাপিয়ে গিয়েছে কলেজ স্ট্রিট চত্বরে বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের তাণ্ডব।
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ স্ট্রিট ক্যাম্পাস এবং বিদ্যাসাগর কলেজ ক্যাম্পাসে হামলা চালিয়েছে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। বাইরে থেকে পাথর, ইট ছোড়া হয়েছে। বাইকে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এখানেই শেষ নয়, দরজা ভেঙে বিদ্যাসাগর কলেজে ঢুকে ভাঙা হয়েছে বিদ্যাসাগরের ঐতিহ্যবাহী মূর্তি। গেরুয়া দলের মারমুখী কর্মী সমর্থকদের হাত থেকে নিস্তার পাননি সংবাদমাধ্যমের কর্মীরাও।
বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর রোড শো ঘিরে উত্তেজনার মাঝে হামলা চলল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, বিদ্যাসাগর কলেজে আর ভাঙচুর করা হল বিদ্যাসাগরের দীর্ঘদিনের ঐতিহ্যবাহী মূর্তিও। আতঙ্ক যেন গ্রাস করল সন্ধ্যার কলকাতাকে।
ঘটনার পরপরই এই ধ্বংসাত্মক আক্রমণ নিয়ে সোচ্চার শহরের সুশীল সমাজ।প্রতিবাদে আমজনতার স্যোসাল সাইট জুড়ে নিন্দার ঝড়। সকলেই প্রায় একসুরে বলছেন, এই ঘটনা শুধু নিন্দাজনকই নয়, স্তব্ধ করে দেওয়ার মতো। কড়া শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।
বরাবর মমতা তথা তৃণমূলের কট্টর সমালোচক বলে পরিচিত নাট্যব্যক্তিত্ব কৌশিক সেন বলছেন, ‘আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধী। তৃণমূলেরও বিরোধী। কিন্তু ওরা বিজেপি নয়। বিজেপি আসলে গুন্ডাদের বাহিনী। অবাঙালি টানে নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহরা রবীন্দ্রনাথ, বিবেকানন্দর নাম নিতে পারেন শুধু, তাঁদের আদর্শ বুঝতে পারবেন না। আর বিদ্যাসাগর বোধহয় ওদের সিলেবাসের বাইরে। তাই চিনতে না পেরে মূর্তি ভেঙে ফেলেছে।’ সেইসঙ্গে তিনি স্পষ্টতই জানিয়ে দেন, মমতার বিরোধিতা করলেও এবারের ভোটে বিজেপির চূড়ান্ত পরাজয় চান তিনি। তা শুধু এই বাংলায় নয়, গোটা দেশেই।বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close