মহানগরশিরোনাম

রাজশাহীতে হস্তচালিত গভীর নলকুপের অভাবে সুপেয় পানির সংকট

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীতে গত সোমবার রাতে বৃষ্টি হলেও খরা এবং গরমের দাপট কমেনি এখনো। রোযাদারগণ রিতিমত হিমশিম খাচ্ছেন। তৃষ্ণায় তাদের প্রাণ রাহিত্রাহি করছে। দিন শেষে ইফতারের সময় প্রান জুড়িয়ে বিশুদ্ধ ঠান্ডা পানি পান করার জন্য সবাই ছোটেন হস্তচালিত নলকুপের দিকে। এসময়ে নলকুলের চারিপর্শে মানুষের ভীর জমে যায়। এমন চিত্র নগরীর বিভিন্ন স্থানে দেখা যায়। রাজশাহীতে কতগুলে হস্তচালিত নলকপু আছে তার হিসাব ওয়াসা ও সিটি কর্পোরেশনে কাছে নেই। কিছু নলকুপ সিডিসি থেকে প্রদান করা হলেও বেশীরভাগ নলকুপ ব্যক্তিমালিকানায় স্থাপন করা হয়েছে। এসব নলকুপের বেশীর ভাব এই মৌসুমে অকেজো হয়ে পড়েছে। খরা মৌসুম হওয়ায় সেমিডিপ নলকুপে পানি এখন আর উঠেনা।
এর কারণ জানতে চাইলে ভাটাপাড়ার মনোয়ারা বেগম জানান, একদিকে রাজশাহীতে বৃষ্টি কম, অন্যদিকে পদ্মায় পানি থাকেনা এই মৌসুমে এবং সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক গভীর নলকুন স্থাপন করায় এই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। গভীর নলকুপ চলমান থাকলে কোনভাবেই সেমিডিপ নলকুপে পানি উঠবেনা বলে জানান তিনি। এছাড়াও সাহেব বাজার এলাকায় ইফতারের পানি নিতে আসা সোলাইমান, রাসেল, মনিরুল ও শাহজাহানসহ আরো অনেকে বলেন, শহরে নলকুপ নাই বললেই চলে। যা আছে তা প্রযোজনের থেকে অনেক কম। সেইজন্য পানি নেওয়া নিয়ে অনেক সময় অন্যদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়ে যায়। এছাড়াও অনেক সময় অপেক্ষা করে নলকুপ থেকে পানি সংগ্রহ করতে হয়। তারা আরো বলেন, ওয়াসার পানি সরাসরি পান করা যায়না বলে নলকুপের উপর সবাই নির্ভরশীর। রাজশাহী শহরবাসীর সুপেয় পানির চাহিদা পুরণে নগরীতে আরো বেশী করে হস্তচালিত গভীর নলকুপ স্থাপনের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তারা।
এদিকে রাজশাহী ওয়াসার সহকারী প্রকৌশলী রেজাউল হুদা বলেন, রাজশাহী শহরে মোট ১০৫টি গভীর নলকুপ স্থাপন করা হয়েছে। এই নলকুপের মাধ্যমে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে নগরীতে কতগুলো নলকুপ আছে তা তাঁর জানা নেই। তবে সুপেয় পানির চাহিদা পুরণে রাজশাহী ওয়াসার কোন গাফিলতি নাই। পানির কোন প্রকার সমস্যা যেন না হয় এবং জনগণ যাতে করে সুপেয় পানি পান করতে পারে তার জন্য তারা আপ্রান চেষ্টা করে যাচ্ছেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।বরেন্দ্র বার্তা/ফকবা/অপস

Close