পাবনাশিরোনাম-২

ঈশ্বরদীতে বিয়ের আসর থেকে কনে অপহরণের চেষ্টা, আটক ৩

পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার ঈশ্বরদীতে বিয়ের আসর থেকে কনে অপহরণের চেষ্টা চালিয়েছে কয়েকজন যুবক। এসময় স্থানীয় জনতা তাদের অস্ত্রসহ আটক করে পুলিশে দেয়। মঙ্গলবার (১১ জুন) সন্ধ্যায় উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের মিরকামারী মুন্নার মোড় সংলগ্ন সান্টু প্রামাণিকের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে।
আটকরা হলেন- একই এলাকার কোলেরকান্দি বটতলা এলাকার আশিকুর রহমান (২২), সোহরাব হোসেন নাসিম (২৪) ও চরমিরকামারী গ্রামের শামসুল হক (২৬)।
স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার নাটোরের বাঘা উপজেলার এক ছেলের সঙ্গে স্কুল পড়ুয়া ওই মেয়ের বিয়ের দিন ধার্য করে তার পরিবার। কিন্তু ওই মেয়ের সঙ্গে আশিকুরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মঙ্গলবার বরপক্ষের লোকজন আসলেও আশিকুরসহ কয়েকজন যুবক সেখানে গিয়ে বিয়ে পণ্ড করে দেয়। পরে রাতে আশিকুর অস্ত্রসহ আরও কয়েকজন যুবক নিয়ে ওই শিক্ষার্থীকে অপহরণ করতে বাড়িতে যায়। অপহরণে বাধা দিলে ওই যুবকরা কনের মা ও বোনসহ কয়েকজনকে মারধর করে। তাদের চিৎকারে গ্রামবাসী জড়ো হয়ে অপহরণকারীদের ধাওয়া দিয়ে তিনজনকে আটক করে। পরে পুলিশে খবর দিলে তারা তিনজনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ শক্তি প্রকল্পের ক্যাম্প পুলিশের ইনচার্জ (উপ-পরিদর্শক) বিকাশ চক্রবর্তী জানান, মঙ্গলবার মিরকামারী মুন্নার মোড় এলাকার সান্টু প্রামাণিকের মেয়ের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বিকালে কে বা কারা ওই বিয়ে পণ্ড করে দেয়। সন্ধ্যার পরে অজ্ঞাত ৮/১০ জনের একটি দল সান্টুর বাড়িতে সামনে অবস্থান নেয়।
তিনি আরও জানান, ওই মেয়েকে অপহরণের চেষ্টাকালে বাড়ির লোকজনের ডাক চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে তাদের আটক করে। খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গেলে বাড়ির বাইরে থাকা অপহরণকারীরা পালিয়ে গেলেও ভেতরে থাকা তিনজনকে আটক করা হয়। তাদের কাছে থেকে এক রাউন্ড গুলি, ম্যাগাজিনসহ একটি বিদেশি পিস্তল উদ্ধার করা হয়।
ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দীন ফারুকী বলেন, ‘পরিকল্পিতভাবে ওই শিক্ষার্থীকে অপহরণ করা হচ্ছিল। আটকদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। অস্ত্র উদ্ধার ও অপহরণের ঘটনায় মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন। বুধবার দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হবে।’ বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close