জাতীয়মহানগরশিরোনাম-২

ওয়ার্কার্স পার্টি র বাজেট প্রতিক্রিয়ায় মেনন- বাদশার দ্বিমুখী বক্তব্য

নিজস্ব প্রতিবেদক: সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ, সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের এই স্লোগানে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বৃহস্পতিবার ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য বাজেট ঘোষণা করেছেন। ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটের মোট আকার দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা।
বাজেট ঘোষনার পর বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি র সভাপতি সভাপতি রাশেদ খান মেনন ও সাধারন সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বাজেট প্রতিক্রিয়ায় পরস্পর বিপরীতমুখী প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেছেন।
তবে উভয়েই একমত এ বাজেটে অনেক বিষয়ে সুস্পষ্ট কিছু বলা নেই।
বাজেট প্রতিক্রিয়ায় রাশেদ খান মেনন বলেন, আমরা মানে এই জনগণ, বাজেটের এই সমৃদ্ধির পেছনে কাজ করা সেই জনগণ, শ্রমিক, কৃষক, উদ্যোক্তা, নারী এদের বিষয়ে সুস্পষ্ট কিছু বলা নেই। সম্পদ পুনর্বণ্টনের বিষয়েও কোনো ইঙ্গিত নেই। তিনি আরো বলেন, এখানে মুষ্টিমেয় ধনিক গোষ্ঠীর হাতে সম্পদ কুক্ষিগত হচ্ছে। একটা বিশাল বৈষম্য সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া কৃষকদের সহায়তার কথা এক লাইনে বলা আছে। নির্দিষ্ট কিছু আমি পাইনি। দারিদ্র্য নিরসনের ক্ষেত্রে ২০৩০ সালের মধ্যে সবার জন্য কর্মসংস্থানের কথা বলা হলেও এই সময়ের মধ্যে যুব সমাজের কী হবে সে বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।
অন্যদিকে, ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য সংসদে যে জাতীয় বাজেট পেশ করা হয়েছে তা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেখা স্বপ্নপূরণে সহায়ক হবে।
তিনি বলেন, এ বাজেট এমন এক সময় এলো যখন আগামী বছরই বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে নিয়ে একটা স্বপ্ন দেখেছিলেন। বাজেট তা বাস্তবায়নে সহায়ক হবে।
তবে বাজেটে কিছু বিষয়ে অস্পষ্টতা রয়েছে বলেও মনে করেন বাদশা। তিনি বলেন, ‘বাজেটে বিভিন্ন সংকট সমাধানে সুনির্দিষ্ট ব্যাখ্যার অনুপস্থিতি রয়েছে। যেমন, এবার কৃষকের ধান নিয়ে বড় সংকট দেখা দেয়। এ সংকট কিভাবে সমাধান হবে বাজেটে তা পরিস্কার হয়নি’।
রাশেদ খান মেনন এই বাজেট নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে বলেন এই বাজেটে নিম্ন আয়ের মধ্যবিত্তের মানুষ সংকটে পরবে অন্যদিকে পার্টিস সাধারণ সম্পাদক বাজেট নিয়ে আশাবাদী বক্তব্য দিয়েছেন এবং একে গণমূখী বাজেট বলেছেন। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close