পুঠিয়াশিরোনাম-২

পুঠিয়ায় পুকুর খননকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০, পুলিশের নিরব ভূমিকার অভিযোগ গ্রামবাসীর

নিজস্ব প্রতিবেদক: নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ফসলি জমিতে পুকুর খননকে কেন্দ্র করে রাজশাহীর পুঠিয়ায় গ্রামবাসী ও ব্যবসায়ী দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত হয়েছে নারীসহ ১০ জন।
আজ শনিবার (১৫ জুন) বিকেলে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের বেলপুকুর থানা এলাকার অন্তর্গত কামার ধাদাস গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে গ্রামজুড়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
ঘটনায় গুরুতর আহতরা হলেন, উপজেলার বেলপুকুর ইউনিয়নের কামার ধাদাস গ্রামের মো. নিজাম উদ্দিন, রিপন আলী ও মোছা. আদরী বেগম। তাদেরকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে আহত বাঁকীদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। ঘটনার পর আহতরা বেলপুকুর থানায় অভিযোগ দায়ের করতে গেলেও অভিযোগ না নিয়ে তাদেরকে থানা থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।
জানা গেছে, মিজানুর রহমান মিজু নামের ওই ব্যক্তি বেলপুকুর ইউনিয়নের কামার ধাদাস গ্রামে অবস্থিত বিলের কয়েকজন কৃষককে হাত করে প্রায় শতাধিক হেক্টর তিন ফসলি জমিতে পুকুর কাটার চেষ্টা করে আসছিলেন। সে উদ্দেশ্যেই তিনি গত ১০ মে রাতের আধাঁরে ওই বিলে একটি এ্যাসক্যাভেটর নামালেও সে সময় স্থানীয়দের বাঁধার মুখে পুকুর কাটার কাজ শুরু করতে পারেননি। পরে গত ১২ মে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওলিউজ্জামান এর হস্তক্ষেপে পুকুরখনন কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেয়া ছাড়াও পুকুর খনন কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রাংশটি অকেজো করেন। ফের ওই বিলে পুকুর খননের চেষ্টা করলে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করবেন বলেও হুশিয়ারি দিয়েছিলেন তিনি।
গ্রামবাসীরা জানান, তাদের তিন ফসলি আবাদী জমি নষ্ট করে মিজানুর রহমান মিজু নামের এক ব্যবসায়ী ওই বিলে পুকুর খনন করতে যন্ত্রাংশ নিয়ে আসেন। বিষয়টি গ্রামবাসী থানা পুলিশকে জানালেও তারা কোন পদক্ষেপ নেননি। পরে বাধ্য হয়ে গ্রামের নারী পুরুষ সবাই পুকুর খননকাজে বাঁধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের সামনেই পুকুর খননকারীরা দেশীয় অস্ত্র হাতে গ্রামবাসীর ওপর হামলা চালায়। এসময় পুলিশ নিরব ভূমিকা পালন করেন।
এ ব্যাপারে মিজানুর রহমান মিজুর সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ঘটনাস্থলে উপস্থিত বেলপুকুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাইফুল ইসলাম বলেন, দুই পক্ষের সংঘর্ষের খবর পেয়ে আমরা সেখানে গিয়ে সবাইকে ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছি। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close