খেলা

বাংলাদেশের সামনে ৩৮২ রানের বিশাল পাহাড়

ক্রীড়া ডেস্কঃ ম্যাচের শুরুতেই অস্ট্রেলিয়াকে চাপে ফেলে দেওয়ার মোমেন্টাম পেয়ে যায় বাংলাদেশ। কিন্তু ডেভিড ওয়ার্নারের ক্যাচ ফেলে দিয়ে সাব্বির রহমান সুযোগটা হাতছাড়া করেন। বাংলাদেশ দলকে আর ম্যাচে ফেরার সুযোগই দেয়নি অজিরা। বল টেম্পারিংয়ের জন্য দুয়ো শোনা ওয়ার্নার ‘স্টান্ডিং অভেয়েশন’ পাওয়ার মতো এক সেঞ্চুরি করেছেন। উসমান খাজা দারুণ ব্যাটিং করেছেন। অ্যারন ফিঞ্চ শুরুতে পথ তৈরি করে দিয়ে গেছেন। অস্ট্রেলিয়া নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে তুলেছে ৩৮১ রান।

নিজেদের ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে এটি বাংলাদেশের চতুর্থ সর্বোচ্চ রান দেওয়ার রেকর্ড। এর আগে ২০০৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই নটিংহামে ৩৯১ রান তোলে ইংল্যান্ড। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিশ্বকাপে। ওই ম্যাচে বাংলাদেশ খায় ৩৮৬ রান। পাকিস্তানের বিপক্ষে ডাম্বুলায় ২০১০ সালে ৩৮৫ রান দেয় বাংলাদেশ। এবার দিল ৩৮১ রান। এর আগে ভারতের বিপক্ষে ২০১১ বিশ্বকাপে ৩৭০ রান খান সাকিবরা।

ঝলমলে রোদ দিয়ে শুরু হয় ট্রেন্ট ব্রিজের সকাল। টস জিতে তাই ব্যাটিং নেয় অস্ট্রেলিয়া। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের দুই ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ এবং ডেভিড ওয়ার্নার শুরুতে ১২১ জুটি গড়েন। বোলিংয়ে এসে ফিঞ্চকে ৫৩ রানে বিদায় করে সেই জুটি ভাঙেন সৌম্য সরকার। এরপর উসমান খাজা এবং ওয়ার্নার আবার জুটি গড়েন। তাদের জুটি থেকে আসে ১৯২ রান।

বাংলাদেশ বোলারদের কচুকাটা করে ডেভিড ওয়ার্নার ১৬৬ রান করেন। সৌম্যর বলে ক্যাচ দেওয়ার আগে চৌদ্দটি চার এবং পাঁচটি ছক্কা তোলেন তিনি। পরে সেঞ্চুরির পথে থাকা উসমান খাজাও সৌম্য বলে ৮৯ রান করে আউট হন। একই ওভারে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ফেরেন ১০ বলে ৩২ রানের এক ঝড় দেখিয়ে।
বরেন্দ্র বার্তা/ নাসি

Close