মহানগরশিরোনাম

পদ্মা গার্ডেনে পুলিশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান, দর্শনার্থীদের উপর লাঠিচার্জ

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী মহানগরীর পদ্মা গার্ডেনে ও মুন্নুজান স্কুলের পদ্মাপাড় সংলগ্ন এলাকায় পুলিশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানে পদ্মাপাড় সংলগ্ন এলাকায় ভ্রাম্যমান দোকানপাট, অবৈধ স্থাপনা, রেষ্টুরেন্টের অস্থায়ীভাবে নির্মিত ছাউনি,উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদ অভিযান চলাকালীন পুলিশের বেধড়ক লাঠিচার্জে আহত হন পদ্মাপাড়ে ঘুরতে আসা একাধিক দর্শনার্থী।এসময় আতংকি হয়ে পড়ে রাজশাহী নগর ও শহরের বাইরে থেকে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা।
রোববার (২৩ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হঠাৎ পুলিশ অভিযান চালায় মুন্নুজান স্কুল সংলগ্ন পদ্মাপাড়ে ও পদ্মা গার্ডেনে। পুলিশ লাঠিচার্জ করে পাড়ে গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা ও দোকান গুলি গুড়িয়ে দেয়। ভ্রাম্যমান দোকানিরা দোকান ফেলে পালিয়ে যায়। এ সময় পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকিং করে দর্শনার্থীদেরকে সরে যেতে বলা হয়।
পদ্মা গার্ডেনের রেষ্টুরেন্ট গুলোর অস্থায়ী ভাবে নির্মিত ছাউনি গুড়িয়ে দেয় পুলিশ, এসময় অস্থায়ী ছাউনিতে অবস্থানরত দর্শনার্থীরা আতঙ্কিত হয়ে সরে যাবার চেষ্টা করেন। এসময় পুলিশের লাঠিচার্জ, ভীড় ও হুড়োহুড়িতে আহত হন বেশ কয়েকজন দর্শনার্থী।
পুলিশের লাঠিচার্জে আহত শিক্ষার্থী মো: মাহিন ও সিয়াম আহমেদ বরেন্দ্র বার্তাকে জানান, তারা বিকেল বেলাতে পদ্মা পাড়ে বেড়াতে এসেছিলেন, উচ্ছেদ অভিযান সম্পর্কে জানা ছিল না, ঘোরা ঘুরি করার সময় তারা ফুদকিপাড়া পদ্মাপাড় সংলগ্ন এলাকায় এসে দেখেন পুলিশ মাইকিং করছে দর্শনার্থীদের সরে যাবার জন্য, সরে যাবার প্রস্তুতি নেবার আগেই পুলিশ সময় সুযোগ না দিয়েই তাদের উপর লাঠিচার্জ করে। এতে সিয়াম আহমেদের হাতে প্রচন্ড আঘাতে হাত অসাঢ় হয়ে ফুলে যায়।
পুলিশের এমন আচরনে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করে সিয়াম আহমেদ বলেন, পুলিশ নির্বিচারে কেন এমন হামলা চালাবে? তারা ছাত্র, অপরাধী নন, তারা এখানে ঘুরতে এসেছেন, মাইকিং চলাকালে পুলিশ বিন্দুমাত্র সময় দেয়নি আগেই তার আগেই লাঠিচার্জ করে, এমনকি পায়ের জুতা খুলে গেলেও সেটা নিতে বাধা দেয়। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close