বগুড়াশিরোনাম

চলছে বগুড়া-৬ আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ

বগুড়া প্রতিনিধি : সোমবার সকাল ৯টায় বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনের ভোট গ্রহণ শুরু হয়। একটানা চলবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। এবারই ভোটাররা প্রথমবারের মতো ইভিএমে ভোট দিচ্ছেন।
সাত প্রার্থীর মধ্যে নৌকা, ধানের শীষ ও লাঙ্গলের মধ্যে লড়াই হবে। প্রার্থীরা হলেন- জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এসএমটি জামান নিকেতা (নৌকা), জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ (ধানের শীষ), জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম ওমর (লাঙ্গল), বাংলাদেশ কংগ্রেসের জেলা আহ্বায়ক ড. মনসুর রহমান (ডাব), মুসলিম লীগের মুফতি মাওলানা রফিকুল ইসলাম (হারিকেন), স্বতন্ত্র প্রার্থী মালয়েশিয়া যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মিনহাজ মণ্ডল (আপেল) ও সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু (ট্রাক)।
বগুড়া উপনির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মাহবুব আলম শাহ্ জানান, বগুড়া পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডের মধ্যে ২০টি ও সদর উপজেলার ১১ ইউনিয়ন নিয়ে বগুড়া-৬ (সদর) আসন। ভোটার ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৪৫৮ জন। তারা আজ সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ১৪১ কেন্দ্রে ৯৬৫ বুথে ইভিএমে ভোট দেবেন।
রোববার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামের ইনডোর প্র্যাকটিস কেন্দ্র থেকে সব কেন্দ্রে ইভিএম ও অন্যান্য সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে।
এ ছাড়া নির্বাচনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। বগুড়া পুলিশের বিশেষ শাখার সূত্র জানায়, ১৪১ কেন্দ্রের মধ্যে ১১১টি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ। নির্বাচনে সহিংসতা এড়াতে তিনস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে।
নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন বাহিনীর প্রায় সাড়ে ৩ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে এক কর্মকর্তার নেতৃত্বে ৫ পুলিশ ও সাধারণ কেন্দ্রে এক কর্মকর্তার নেতৃত্বে চার পুলিশ রয়েছে। এছাড়া ১৫ প্লাটুন বিজিবি সদস্য, প্রতি কেন্দ্রে ১২ আনসার সদস্য, র‌্যাবের ৮ সদস্যের ১৪টি টিম দায়িত্ব পালন করছে। ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে রয়েছে ২৬টি ভ্রাম্যমাণ টিম।
প্রতীক পাওয়ার পর থেকে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী এবং তাদের সমর্থকরা ব্যাপক প্রচারণা চালিয়েছেন। শনিবার সকাল ৯টায় প্রচারণা শেষ হলেও গোপনে ভোট চাওয়ার কাজ চলছে।
প্রচারণায় গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ ও তার সমর্থকরা বলেছেন, ধানের শীষে ভোট দিলে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জেল থেকে মুক্তি পাবেন এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারম্যান তারেক রহমান দেশে ফিরে আসতে পারবেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থী এসএমটি জামান নিকেতা ও তার সমর্থকরা বলেছেন, বিএনপি প্রার্থী গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট) আসনে এমপি থাকাকালে তার পরিবহন ব্যবসার স্বার্থে বগুড়া-সিরাজগঞ্জ রেলপথ ও বগুড়া বিমানবন্দর প্রকল্প বাস্তবায়ন হতে দেননি।
তাই তিনি (নিকেতা) নির্বাচিত হলে এ দুটি প্রকল্প ছাড়াও পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন এবং চলমান প্রকল্পগুলোর গতি ত্বরান্বিত করবেন।
জাতীয় পার্টির প্রার্থী নুরুল ইসলাম ওমর জানান, তিনি ৫ বছর মহাজোটের এমপি থাকাকালে সাধ্যমতো বগুড়ার উন্নয়নে কাজ করেছেন। তিনি নির্বাচিত হলে এসব কাজ শেষ ছাড়াও আরও উন্নয়ন করবেন।
৩০ ডিসেম্বরের একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনে বগুড়া-৬ (সদর) আসনে মহাজোটের পক্ষে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম ওমরকে।
তিনি বিএনপি প্রার্থী দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে বিপুল ভোটে পরাজিত হন। ৩০ ডিসেম্বরের ওই নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের প্রাপ্ত ভোট ২ লাখ ৭ হাজার এবং মহাজোট প্রার্থী নূরুল ইসলাম ওমর পায় ৪০ হাজার ভোট।
পরে এই আসনে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ না নেয়ায় শূন্য ঘোষণা করা হয়। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close