চারঘাটশিরোনাম-২

চারঘাটে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের সীমানা প্রাচীর নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

মো: সজিব ইসলাম, চারঘাট প্রতিনিধি: রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার সারদা উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের সীমানা প্রাচীর নির্মাণে বাধা ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বাধা ও সরকারী জমি ছাড় দেওয়ায় ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী।

জানা যায়, উপজেলাবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সারদা উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকার মানুষের চিকিৎসা দিয়ে আসছে। অনেক বছর যাবৎ স্বাস্থ্য কেন্দ্রের নিরাপত্তা প্রাচীর বা দেয়াল না থাকায় অরক্ষিত অবস্থায় ছিল সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটি। তখন রাত হলেই মাদকসেবীদের আড্ডায় পরিণত হতো প্রতিষ্ঠানটি। এজন্য এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী ছিল উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রটির সীমানা প্রাচীর নির্মান করে সুরক্ষিত করা।

সম্প্রতি শুরু হয়েছে ১০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের সীমানা প্রাচীর নির্মান কাজ।সীমানা প্রাচীর চার দিকে না করে তিনদিকে নির্মাণ করছে সংশ্লিষ্টরা। যা প্রকৃত অর্থে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের নিরাপত্তা যথাযথ হবে না বলে জানান এলাকাবাসী।

উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের তিন দিকে প্রাচীর করলেও সামনের দিকে প্রাচীরে প্রায় ৫ ফিট ফাঁকা জায়গা রাখা হয়েছে,যা এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি করেছে।তাদের দাবি বিশেষ কাউকে রাস্তা বানানোর সুবিধা দিতেই প্রায় ৫ ফিট জায়গা ফাঁকা রাখা হয়েছে।আর এভাবে প্রাচীর নির্মাণ হলে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের অনেক জমি অন্যের দখলে চলে যাবে বলে জানান এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে রাজশাহী জেলা আ’লীগের সদস্য চারঘাটের বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম বাদশা বলেন, সরকারী জমিতে সকল নিয়ম মেনে প্রাচীর নির্মান হবে, কিন্তু কাউকে বিশেষ সুবিধা দিতে সরকারী জমি ছাড় দেওয়া যাবে না।এলাকাবাসী এটা মেনে নেবে না।তিনি জমি ছাড় না দিয়ে উপ- স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পুরো অংশ জুড়ে প্রাচীর নির্মানের দাবী জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে প্রাচীর নির্মাণকারী ঠিকাদার তছলিম উদ্দীন বলেন, উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের তিন দিকের সীমানা প্রাচীর নির্মাণের জন্য টেন্ডার হয়েছে। যার পরিপেক্ষিতে পঁয়তাল্লিশটি পিলারের সমন্বয়ে প্রাচীর নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে।তবে সামনে প্রাচীরে তারা কোনো ফাঁকা জায়গা রাখতে চায়নি।সেজন্য একেবারে জমির শেষ প্রান্তে পিলার নির্মানের কাজও শুরু করেছিলেন। কিন্তু শাহীন নামের এক ব্যাক্তি এসে তার নিজের জমি দাবী করে বার বার কাজে বাঁধা সৃষ্টি করেছেন। পিলারের রডগুলোও কারা যেনো বাঁকা করে ফেলেছেন।এজন্য তারা শেষ পর্যন্ত কিছু জায়গা ছেড়ে সামনের প্রাচীর নির্মান করছেন।

এ ব্যাপারে রাজশাহী জেলা এলজিইডি প্রকৌশলী হান্নান বলেন,সামনের প্রাচীর নির্মানের সময় জমি নিয়ে শাহীন নামে এক ব্যাক্তির সাথে ঝামেলা হওয়ার কারনে আপাতত কিছু জায়গা ফাঁকা রাখা হয়েছে।তবে চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএসও এর সাথে কথা বলে তার নির্দেশমত ফাঁকা জায়গাটুকু পুরণ করা হবে।

এ বিষয়ে শাহীন নামের ব্যাক্তি কাজে বাঁধা দেওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন,কাজে কোনো প্রকার বাঁধা সৃষ্টি করা হয়নি। স্বাস্থ্যকেন্দ্রের জমি পরিমাপ করে প্রাচীর নির্মানের কথা বলা হয়েছে।
বরেন্দ্র বার্তা/ নাসি

Close