বাগমারা

গাঙ্গোপাড়া ভবানীগঞ্জ পাকা রাস্তায় মা-ইটভাটার কারনে কর্দমাক্ত মাটিতে জনদুর্ভোগ চরমে

আলমগীর হোসেন, বাগমারা প্রতিনিধি : রাজশাহীর বাগমারা গাঙ্গোপাড়া-ভবানীগঞ্জ পাকা রাস্তায় মা ইটভাটার কর্দমাক্ত মাটিতে কৃত্রিম জনদুর্ভোগ চরমে। মা ইটভাটা উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের বাইগাছা-বসন্তপুর মৌজার মাঝমাঝি জায়গায় অবস্থান। শনিবার সন্ধায় ও আজ রবিবার সকালে বৃষ্টিপাতে পথচারীদের ভোগান্তির অন্ত নাই।
শনিবার সন্ধায় পাকা রাস্তায় এক পথচারীকে বাইসাইকেল কাঁধে করে রাস্তা চলাচল করতে দেখা গেছে। যাদের মোটর বাইকে পরিবারসহ শিশু ছিল তাদেরকে অসহায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে । মনে হয়েছে স্বাধীন দেশে পরবাসী। ইউরোপিয়ান দেশগুলোতে হলে দোষীদের তাৎক্ষণিক শাস্তি নিশ্চিত করা হতো।

শনিবার সন্ধায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনায় মানব বন্ধন করেছে স্থানীয়রা । দু’একজনকে কর্দমাক্ত জুতা উঁচিয়ে মানববন্ধনে দাঁড়াতে দেখা গেছে। এ দুর্ভোগে পথচারীসহ স্থানীয়দের ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে। পানিশাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফারুক হোসেন জানায়, মেইন রোড়ের সাথে সাথে বসন্তপুর-পানিশাইল পাকা রাস্তায় একই অবস্থা, যার কারণে প্রতিদিন আমাদের ইউনিফর্ম ড্রেসে স্কুলে যেতে সমস্যা হয়।বসন্তপুর গ্রামের আমিনুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর আলম, আলতাফ খোন্দকার, রামপুর গ্রামের আলহাজ¦ গিয়াস উদ্দীন জানান, মা ইটভাটার যৌথ মালিক আব্দুস সালাম ও মতিউর জোর পূর্বক জায়গা-জমি দখল করে মাটি কাটছে এবং মজুদ করছে। আমরা প্রতিবাদ করলে তিনি প্রবাভশালী পৌর মেয়র আঃ মালেকের আত্মীয় বলে পরিচয় দেন। মিথ্য মামলা-হামলার হুমকি ধামকি দিয়ে স্থানীয়দের ভীতি প্রদর্শন করেন। তাঁরা প্রশাসনকে জানিয়েছিলেন। সূত্রটি জানায়, প্রশাসন না কী রাতের বেলা মাটি কাটা ও মজুদের পরামর্শ দেয়, সেজন্য প্রশাসন এবং সংবাদকর্মীদের ও তাঁরা বিশ্বাস করতে পারছেন না।শনিবার সন্ধায় সরজমিন ভাটায় গিয়ে কোন কর্মচারী, ম্যানেজার কাহারো দেখা পাওয়া যায়নি। ঘর দরজা তালাবদ্ধ দেখা যায়। আব্দুস সালামের দেখা পাওয়া সম্ভব হয়নি বিধায় তাঁর বক্তব্যও জানা যায়নি।
বাগমারা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিসিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট জাকিউল ইসলামকে মোবাইল ফোনে অবহিত করলে তিনি জানান, আমি এখন ঐ এলাকাতে রয়েছি টাকা হাতানোর অভিযোগে প্রতারক চক্রকে জেল জরিমানা করছি। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
বরেন্দ্র বার্তা/ নাসি

Close