সাহিত্য ও সংস্কৃতি

স্মৃতিকথা

সবনাজ মোস্তারী স্মৃতি

সেদিন আমাদের দুজনের পছন্দের রাস্তায় মাঝ দুপুরে হেঁটে আসার সময় অতিরিক্ত গরমের জন্য যখন আমি জ্ঞান হারিয়েছিলাম সেদিন তুমি আমাকে হসপিটালে ভর্তি করেছিলে আর বাড়িতে ফোন দিয়ে জানিয়েছিলে। যতক্ষন আমার জ্ঞান ফিরেনি ততক্ষন তুমি কোথাও না গিয়ে আমার হাত ধরে বসে ছিলে।ডাক্তার বলেছিলেন তেমন কিছু হয়নি। অতিরিক্ত গরম আর প্রেসার লো হয়ে যাবার কারনে জ্ঞান হারিয়েছিলাম। ঠিক মত খাওয়া দাওয়া আর কয়েকদিন বিশ্রাম নিলেই ঠিক হয়ে যাবো।
সেদিন অসুস্থ ছিলাম আমি কিন্তু দেখতে অসুস্থ লাগছিলো তোমাকে। মা বলছিলো তুমি নাকি খুব কান্না করছিলে।
তারপর হসপিটাল থেকে বাড়ি যাবার সময় তোমার মুখটা ছিলো মলিন। তুমি অনেক ভয় পেয়েছিলে আমার অসুস্থার কারনে।
পরের দিন যখন নদীর ধারের বট গাছটার নিচে তোমার জন্য অপেক্ষা করছিলাম তুমি আমার পছন্দের ফুল
কৃষ্ণচূড়া দিয়ে আমার হাত ধরে খুব কেঁদেছিলে আর আমাকে খুব বকেছিলে যেনো ঠিক মত খাওয়া দাওয়া করি। তোমার ভয় সেদিনও কাটেনি তাইতো পাগলের মত করে ওমন করে কেঁদেছিলে।
তোমার কান্না থামিয়ে তোমাকে বলেছিলাম ইশান আমি কানাডা পড়তে যাবার জন্য একটা স্কলারশিপ পেয়েছি। কিন্তু আমি যাবো না। কারন ওখানে তোমাকে ছাড়া আমি থাকতে পারবো না।
তুমি আমার মাথায় হাত রেখে বলেছিলে ধুর পাগলি আমি তো সব সময় আছি আর থাকবো।আমাদের কেউ আলাদা করতে পারবেনা। তোমার তো স্বপ্ন ছিলো দেশের বাইরে পড়তে যাবার। এখন এত বড় সুযোগ পেয়ে হাতছাড়া করতে করবে কেনো?
সেদিন তোমার কথা শুনে আমি কানাডা যাবার সব কিছু কনফার্ম করে ফেলি।
আমি কানাডা চলে যাবার পর সাত আট মাস সব কিছু ভালোই ছিলো তোমার আমার। হঠাৎ তুমি আমার সাথে যোগাযোগ কমিয়ে দিলে।একটা সময় তুমি আমার সাথে যোগাযোগ একদম বন্ধ করে দিলে।তোমাকে আমি হোয়াটসএপ, টুইটার,ফেসবুক,ফোন কোনো ভাবেই পাচ্ছিলাম না।
তোমার বন্ধু রবিনের কাছে জানতে পারলাম তুমি একটা চাকুরি পেয়েছ তাই তুমি ভীষন ব্যস্ত।
আমিও নিজেকে বুঝালাম তুমি তো আমাকে অনেক ভালোবাসো তাহলে যোগাযোগ এ কদিন বন্ধ থাকলে কি হবে বাংলাদেশে গিয়েই তো তোমার সাথে দেখা হবে। এ ভাবে কেটে গেলো চারটা বছর।গতকাল আমি বাংলাদেশে এসেছি।এসে রবিনের কাছে জানতে পারি তুমি বিয়ে করেছ।
কি করবো বুঝতে পারছিলাম সারারাত অনেক কেঁদেছি তোমাকে নিয়ে দেখা স্বপ্নগুলো ভেঙ্গে যাওয়ার কারনে।
কি করে পারলে এমন করতে ইশান। এখন আমি তোমার আর আমার সব চেয়ে পছন্দের জায়গা নদীর ধারের সেই বটতলায় বসে আছি। যেখানে তুমি আর আমি প্রতিদিন দেখা করতাম।আর এখানেই তুমি আমাকে বলেছিলে ধুর পাগলি আমি তো তোমারি আছি আর তোমারি থাকবো। কেউ আমাদের আলাদা করতে পারবে না।
চার বছর পার হয়ে গেলেও জায়গাটা ঠিক আগের মতই আছে একটুও পালটাইনি। পালটে গেছো শুধু তুমি ইশান!!!!!

Close