নওগাঁশিরোনাম-২

মহাদেবপুরে সড়ক পাকাকরনে ভালো ইট খোয়ার আড়ালে ঢাকা পড়ল ৩ নং ইটের খোয়া

মহাদেবপুর (নওগাঁ)প্রতিনিধি : নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলা গ্রামীন সড়ক পাকাকরন কাজে ভালো ইট খোয়ার আড়ালে ঢাকা পড়ল ৩ নং ইটের খোয়া। বিষয়টি নিয়ে গ্রামবাসীর মধ্যে তোলপাড় সৃষ্টি করেছে। গ্রামবাসীর অভিযোগে জানা যায় উপজেলার মাতাজি মেইন সড়ক হইতে কৃষ্ণপুর গ্রাম পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মান কাজের বরাদ্দ হয়। যথারিতী সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার  নিম্নমানের ইট খোয়া দিয়ে দ্রুত গতিতে কাজ করার চেষ্টা করছেন । ইতিমধ্যেই নির্মান কাজের ইট খোয়া ফেলা সম্পূর্ন করেন। সড়কের সাব বেজের পর ডব্লু বিএম এর খোয়া ফেলার শুরুতেই ৩ নং ইট ফেলতে শুরু করে ঠিকাদার ।

প্রথম দিকে গ্রামবাসী ৩নং ইট ফেলার প্রতিবাদ করলে তাদেরকে তোয়াক্কা করা হয়নি। প্রায় ১০/১২ ট্রাক ৩ নং ইট ফেলে ভেঙ্গে নিয়ে কিছু ভালো খোয়ার সঙ্গে সংমিশ্রন করে ডব্লুবিএম ফিলাপ করে। তথ্য সংগ্রহ কালে আটুরা গ্রামের আজিমদ্দীন বলেন নিম্নমানের ইট খোয়া ফেলার প্রতিবাদ করেছি কিন্তু কে কার কথা শোনে। কৃষ্ণপুর হাঠৎ পাড়া গ্রামের ইজাহার আলী ও মানিক বলেন নির্মান কাজ দেখে অবাক হলাম প্রতিবাদ করলে বলে তাই যে পাচ্ছেন বাপ দাদার ভাগ্যী।

মোঃ রবিউল ও সাবু বলেন ৩ নং ইট ফেলার চিত্র আমরা ফেসবুকে ছেড়ে দিলে আমাদের ফোনে হুমকী দেওয়া হয় তখন তারা পোষ্টটি ডিলিট করে।
গ্রামবাসী আরো জানায় সড়কে খোয়া ফেলার পরে তার  উপর উপর্যপরি ইটভাটার রাবিশ ফেলে রোলিং করে রাস্তার কাজ সম্পন্ন করা হয়।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার সামিম হোসেনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি জানান সড়কের কাজ ভালো করেছে। নিম্নমানের খোয়া ব্যবহার
করেননি। নির্মান কাজের সুন্দর ফিনিশিং ও কাজের মান বাড়ানোর জন্য তার নিজস্ব ইট ভাটা থেকে রাবিশ এনে সড়কে ফেলেছেন। মহাদেবপুর
উপজেলা প্রকৌশলী সুমন মাহমুদ এর কাছে প্রকল্পের বরাদ্দের পরিমান জানতে চাইলে তিনি জানান বৃহৎ একটি প্যাকেজের কাজ এটা দেখে বলতে হবে এ মুহুর্তে জানা নেই। তিনি আরও জানান আমার অজান্তে কিছু নিম্নমানের খোয়া ও রাবিশ ফেলা হয়েছিল তা অপসারন করে নিয়েছি। এখন কাজের আর কোন সমস্যা নেই।

বরেন্দ্র বার্তা/ মাআ/ নাসি

Close