বাগমারাশিরোনাম

বাগমারায় শিশুর গলা কাটার গুজব

আব্দুল মতিন, বাগমারা প্রতিনিধি; রাজশাহীর বাগমারার মিজানুর রহমান মিজান (৫) নামের এক শিশুকে জবাই করে মাথা নেওয়ার গুজব উঠেছে। মিজানুর রহমান মিজান উপজেলার ভবানীঞ্জ পৌরসভার সূর্য্যপাড়া মহল্লার মিঠুন রহমানের ছেলে বলে জানা গেছে। খবর পেয়ে রাতেই বাগমারা থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন। পুলিশ ছেলেটির গলা কাটার সাথে মাথা কাটার ব্যক্তিদের কোন সুনিষ্টি প্রমান পায়নি বলে বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান জানিয়েছেন। রাতেই শিশু মিজানুর রহমান মিজানকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় সুর্য্যপাড়া মহল্লায় গলা কাটার গুজব ছড়িয়ে পড়লে অন্য শিশুর অভিভাবকদের মধ্যে আতংকের সৃষ্টি হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভার সূর্য্যপাড়া মহল্লার মিঠুন রহমান প্রতি দিনের ন্যায় বৃহস্পতিবার রাতে খাবার খেয়ে স্ত্রী ও শিশু মিজানুর রহমানকে সঙ্গে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। মিটুন রহমান ঘরের খাটে ঘুমালেও মা ফিরোজা বেগম শিশু মিজানুর রহমানকে সাথে নিয়ে একই ঘরে মেঝেতে শুয়ে পড়ে। রাত ১২ টার দিকে শিশু মিজান কাঁন্না শুরু করলে এসময় মা বাবার ঘুম ভেঙ্গে যায়। তারা শিশু মিজানুর রহমানের গলা দিয়ে রক্ত পড়তে দেখে চিৎকার শুরু করে। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে কিছু বুঝে উঠ্রা আগে তাকে চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকের কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করেন। খবর পেয়ে রাতেই বাগমারা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যান এবং অনুসন্ধ্যান শুরু করেন। পুলিশের অনুসন্ধ্যানে দেখা যায় শোবার ঘরের শোকেচের কাঁচ ভেঙ্গে শিশু মিজানের গলায় পড়ে। কাঁচেই শিশু মিজানুর রহমানের গলা কেটে যায় বলে বাগমারা থানার পুলিশ নিশ্চিত হয়। পরিবারের সদস্যরা সকলেই শিশু মিজানের সাথে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে থাকার কারনে তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি। শিশুদের মাথা কাটার গুজবে আতংক না ছড়ানোর আহবান জানিয়েছেন বাগমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলাম। পৌরসভার সূর্য্যপাড়া মহল্লার ঘটনার শিশু মিজানুর রহমানের গলা কাটার বিষয়টি তিনি গুজব ছড়ানো ছাড়া আর কিছুই নয় বলে স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। বিষয়টি জানার সাথে সাথে তিনি বাগমারা থানার পুলিশকে বিষয়টি দেখার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। তিনিও বিষয়টির খোঁজ খবর নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।
বিষয়টি নিয়ে কথা বলা হলে বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান বলেন, গলা কাটার বিষয়টি গুজব ছাড়া কিছুই নয়। শোকেচের কাঁচে শিশু মিজানের গলা কেটেছে বলে তিনি জানিয়েছেন। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close