বাগমারাশিরোনাম-২

বাগমারায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছেলেধরা গুজব আতংকে কমে গেছে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি

বাগমারা প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছেলেধরার গুজব আতংকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির হার কমে গেছে বলে জানা গেছে। এ নিয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে গুজবে বিভ্রান্ত না হবার জন্য মাইকিংসহ বিভিন্ন নির্দেশনা প্রদান করা হলেও অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানদের নিয়ে আতংকে রয়েছেন।
জানা যায়, সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে ছেলেধরার দল শিশুদের গলা কেটে নিয়ে নিচ্ছে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে চরম আতংক দেখা দেয়। সম্প্রতি বাগমারার ভবানীগঞ্জ পৌর এলাকার সূর্য্যপাড়া মহল্লায় রাতে কাঁচে শিশুর গলা কেটে যায়। এতে অভিভাবক মহলে আরো আতংক তৈরী হয়। গুজব জেনেও অনেকের মাঝে তাদের সন্তানদের নিয়ে ভীতি দেখা দেয়।
উপজেলার গোবিন্দপাড়া ইউনিয়নের পাসুড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জিয়াউর রহমান জানান, সম্প্রতি তার প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কিছুটা কম হচ্ছে। তবে বাড়ি বাড়ি গিয়ে অভিভাবকদের গুজচেব কান না দেয়ার জন্য আহ্বান জানানো হচ্ছে। ঝিকরা ইউনিয়নের ঝিকরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন জানান, ছেলেধরার গুজবে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কম হচ্ছে। তবে এ নিয়ে বিভ্রান্ত না হবার জন্য শিক্ষার্থী ও অভিভাকদের জানানো হচ্ছে। এদিকে হামিরকুৎসা ইউনিয়নের আলোকনগর গ্রামের শিক্ষার্থীর অভিভাবক আব্দুস সোবহান জানান, চারিদিকে ছেলেধরার খবরে আমার সন্তান কে কয়েকদিন থেকে বিদ্যালয়ে যাওয়া থেকে বিরত রেখেছি। অনেক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান, বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে তাদের অভিভাবকরাও আসছেন। অভিভাবকদের মাঝেও ভয় থাকায় তারা তাদের সন্তানদের একা বিদ্যালয়ে আসতে দিচ্ছেন না বলে তারা জানিয়েছেন।
এসব বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সিদ্দিকুর রহমান জানান, গুজবে কান না দেয়ার জন্য সকল শিক্ষকদের নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলাম জানান, বাগমারায় এ ধরনের কাজ সংঘঠিত হবার খবর পাওয়া যায়নি। এটা নিছক এক প্রকার গুজব। গুজবে কান না দেয়ার জন্য সকলকে জানানো হয়েছে। বরেন্দ্র বার্তা/সরা/অপস

Close