চারঘাটশিরোনাম

প্রেমিকার স্বামীকে খুন করতে বাগেরহাট থেকে রাজশাহী: আটক ৪

মো: সজিব ইসলাম, চারঘাট প্রতিনিধি : পরকীয়া প্রেমিকার নির্দেশে তার স্বামীকে জবাই করে হত্যার পর গলাকাটা গুজব বলে চালিয়ে দেওয়ার জন্য বাগেরহাট থেকে রাজশাহীতে এসে পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন প্রেমিক ও তার তিন বন্ধু।
গতকাল শনিবার (২৭ জুলাই) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার ফুলতলার একটি আমবাগান থেকে দু’জন এবং পরে রাজশাহী স্টেশনে অভিযান চালিয়ে অপর দু’জনকে আটক করা হয়।

প্রেমিকার স্বামীকে খুন করতে বাগেরহাট থেকে রাজশাহী: আটক ৪
উদ্ধারকৃত ছুরি ও মেডিসিন

আজ রোববার (২৮ জুলাই) বিকেল ৪টার দিকে রাজশাহী পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান জেলা পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ।
আটককৃতরা হলেন- বাগেরহাট জেলার মোল্লাহাট থানার গোড়ফা এলাকার মো. রবিউল শেখের ছেলে মো. রাসেল শেখ (২৪), নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জ থানার কাঞ্চন এলাকার হাসেম আলীর ছেলে মো. সজীব (১৯), একই জেলার ফতুল্লার আলীগঞ্জের পারভেজ ওরফে মোশারফ হোসেনের ছেলে মো. মিরাজ হোসেন (১৯), পটুয়াখালী জেলার গলাচিপার নলুয়াবাগি এলাকার মজিব মৃধার ছেলে মো. কাওসার (২০)। তারা সবাই নায়ারণগঞ্জে এলিট সিকিউরিটি ফোর্স কোম্পানির নিরাপত্তা কর্মী হিসেবে কর্মরত।
আটককৃতদের দেওয়া তথ্যের বরাতে পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ জানান, প্রায় ৫ বছর আগে বাগেরহাটের মোল্লাহাট থানা এলাকার তানিয়া নামে এক নারীকে বিয়ে করেন একই উপজেলার গোড়ফা গ্রামের জালাল শিকদারের ছেলে কাঞ্চু শিকদার ওরফে কাঞ্চন। বিয়ের কিছুদিন পর তানিয়া সৌদি আরব চলে যান। তিনি সেখানে একটি বিউটি পারলারে কাজ করেন।
বছর দু’য়েক আগে তানিয়ার সঙ্গে একই উপজেলার গোড়ফা এলাকার রবিউল শেখের ছেলে রাসেল শেখের মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু তাদের প্রেমে বাধা হয়ে দাঁড়ায় স্বামী। এজন্য কিছুদিন আগে রাসেলের সঙ্গে তানিয়া তার স্বামী কাঞ্চনকে হত্যার পরিকল্পনা শুরু করে।
পরিকল্পনা অনুযায়ী- তারা রাজশাহীর চারঘাটের একটি নির্জন আমবাগানকে হত্যাকাণ্ডের স্থান হিসেবে বেছে নেন। ওই বাগানের চারদিকের ছবি তুলে তা ইমোযোগে সৌদি প্রবাসী তানিয়াকে পাঠায় প্রেমিক রাসেল। তানিয়া সম্মতি দিলে শুক্রবার তানিয়ার স্বামী কাঞ্চনকে পাসপোর্ট করানোর কথা বলে ট্রেনযোগে রাজশাহী নিয়ে আসেন রাসেল। আর নারায়ণগঞ্জ থেকে আসেন রাসেলের সহযোগী তিন যুবক।
শনিবার (২৭ জুলাই) দিবাগত রাতে গ্রেফতারকৃত মিরাজ ও কাওসার তানিয়ার স্বামী কাঞ্চনকে নিয়ে অটোরিকশায় করে চারঘাটের ওই আমবাগানের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। ফুলতলা বাজারে পৌছালে কাঞ্চনের মনে সন্দেহ জাগে। সে তখন চিৎকার করে অটো থেকে নেমে পালানোর চেষ্টা করে।
কাঞ্চনের চিৎকারে আশেপাশের মানুষ এসে মিরাজ ও কাওসারকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী রাজশাহী রেলস্টেশন থেকে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী রাসেল শেখ ও তার অপর বন্ধু সজীবকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ।

পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ আরও বলেন, মূলত তাদের পরিকল্পনা ছিল- কাঞ্চনকে গলাকেটে হত্যার পর গলাকাটা গুজব বলে চালিয়ে দেওয়া। তাদের কাছ থেকে ধারালো ছুরি ও অজ্ঞান করার মেডিসিন উদ্ধার করা হয়েছে। আমরা রাসেল ও তানিয়ার ফোনালাপ ও ইমোতে কথাপোকথনের অডিও পেয়েছি।
তিনি বলেন, তবে তানিয়ার বিস্তারিত পরিচয় এখনও পাওয়া যায় নি। ভুক্তভোগী কাঞ্চন রোববার সকালে বাগেরহাটে চলে গেছেন। তিনি তার এলাকার উপজেলা চেয়ারম্যানকে নিয়ে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা হবেন। তিনি আসার পর ওই চার যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে। বরেন্দ্র বার্তা/মিআআ/অপস

Close