চারঘাটশিরোনাম-২

কামারপাড়ায় বেড়েছে ব্যস্ততা

মিদহাত আজিজ আবির, চারঘাট : কোরবানির ঈদ আসলে কাক ডাকা ভোর হতে গভীর রাত পর্যন্ত টুং-টাং শব্দে মুখরিত হয়ে ওঠে কামারপল্লী। শুরু হয় নতুন করে কাজের ব্যস্ততা। চারঘাট উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে দা, কুড়াল, বটি, ছোট-বড় চাকু, ছোরা ও কাটারিসহ নানা সামগ্রী তৈরি করতে দিনে ও রাতে সমান তালে কাজ করছেন কামারপল্লীর কারিগরেরা।
অন্য সময় কাজের চাপ না থাকলেও কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের কামাররা দেশি প্রযুক্তির দা, কুড়াল, বটি, ছোট-বড় চাকু, ছোরা ও কাটারিসহ নানা সামগ্রী তৈরি করতে আগেভাগেই ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। এছাড়াও হাট-বাজারসহ বিভিন্ন জায়গায় এরই মধ্যেই গ্রামের লোকজন গরু, মহিষ, ছাগল জবাই ও মাংস তৈরির কাজের জন্য কামারদের কাছে প্রয়োজনীয় ধারালো দেশি তৈরি চাকু, বটি, কাটারি ও ছুরি তৈরির আগাম অর্ডার দেয়া শুরু করায় কামারপল্লী গুলোতে টুং-টুং শব্দে এখন মুখরিত।
সরেজমিনে বিভিন্ন বাজারের কামারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ঈদুল আযহা এলেই তাদের ব্যস্ততা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। তবে ঈদ ছাড়া বাকি দিনগুলোতে তাদের তেমন একটা ব্যস্ততা থাকে না বললেই চলে। বছরের অন্যান্য সময় তাদের দিনে ২-৩শ’ টাকা আয় হয় আবার কোন কোন দিন হয়ই না।
চারঘাট বাজারের রণজিৎ কর্মকার জানান, লোহা পিটিয়ে বিভিন্ন জিনিস তৈরি করা আমাদের পেশা। পৈত্রিক সূত্রে আমি এ পেশায় জড়িত। একটি মাঝারি ধরনের দা ও কাটারি তৈরি করে ওজন অনুযায়ী ২শ’ ৫০ টাকা থেকে ৩শ’ টাকা পর্যন্ত বিক্রয় হয়। সারাদিন হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে যে ক’টি জিনিস তৈরি করি তা বিক্রয় করে খুব বেশি লাভ না হলেও পরিবার-পরিজন নিয়ে ডাল-ভাত খেয়ে বেচে থাকার স্বার্থে এ পেশা আমি ধরে রেখেছি। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close