মহানগরশিরোনাম

ঈদকে সামনে রেখে নগরীর কামারগণ ব্যস্ত সময় পার করছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি মাসের ১২ তারিখ পবিত্র ঈদ-উল-আযহা। এই ঈদে সামর্থ্য অনুযায়ী ধর্মপ্রাণ মুসলমান কোরবানী করে থাকেন। আর এই কোরবানী করার জন্য মূল যন্ত্রপাতি হচ্ছে অস্ত্র। এই অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে ছুরি, চাকু, হাঁসুয়া, বটি ও চাপাতিসহ অন্যান্য অস্ত্র। এই সকল অস্ত্র তৈরী করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামারগণ। দাসপুকুর মোড়ে সেরাজুল নামে এক কামারকে চাকু তৈরী করতে দেখা যায়। এছাড়াও তার তৈরী বিভিন্ন ধরনের ছুরি, চাকু, হাঁসুয়া, বটি ও চাপাতি জনগণকে ক্রয় করতে দেখা যায়। তার ব্যবসা সম্পর্কে জানতে চাইলে সেরাজুল বলেন, বংশ পরম্পরায় তাদের এই ব্যবসা, তারা সব ভাই ভাতিজা এই পেশায় জরিত। এছাড়াও পবার আকসা নগরের প্রায় চল্লিশজন কামার রয়েছে। তিনি আরো বলেন, সারা বছর তারা এই ব্যবসা করে সংসার পরিচালনা করেন। গড়ে প্রতিদিন ১০০০-১২০০ টাকা তিনি আয় করেন। আর কোরবানীর ঈদে তাদের বসে থাকার সময় নাই। দিনরাত কাজ করেন। আয়ও ভালো হয়। সারা বছরের জণ্য একটা অর্থ তারা জমা করতে পারেন বলে জানান তিনি।
সেরাজুল বলেন, কোন অর্ডার নিয়ে তিনি কাজ করেন না। ছুরি, চাকু, চাপাতি হাঁসুয়া, বটি, দা, কান্তি সব কিছু¦ই তিনি তৈরী করে বিক্রি করেন। এছাড়াও পুরাতন অস্ত্র আগুনে পুড়িয়ে পুণরায় ব্যবহার উপযোগি করে তোলেন তিনি। নগরীর লক্ষ্মীপুর বাকীর মোড় এলাকার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ঈদের দিন কোরবানীর পশু জবাই করে মাংশ তৈরী করার জন্য তিনি তার পুরাতন ছুরি, চাকু, চাপাতি, হাঁসুয়া ও বটি ধার দিতে নিয়ে এসেছেন। প্রতি বছর তিনি এখানে এসে এগুলো ধার করিয়ে নেন। এছাড়াও ক্রেতা জমসেদ আলী বলেন, কোরবানীর দিন অস্ত্র না থাকলে পশু জবাই থেকে মাংশ করা পর্যন্ত কোন কাজ হয়না। আর শহরেতো সবার নিকট এই ধরনের অস্ত্র থাকেনা। তাই তিনি নিজের জন্য চাকু ও চাপাতি ক্রয় করতে এসেছেন। এদিকে নগরীর দাসপুকুর, বহরমপুর ও কোর্ট বাজার এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে কামারদের একই ধরনের কাজ করতে দেখা যায়। বরেন্দ্র বার্তা/ফকবা/অপস

Close