গোদাগাড়িশিরোনাম

গোদাগাড়ীর আদিবাসী মুক্তিযোদ্ধা বীরেনের তিন বছর ধরে ভাতা বন্ধ

এনআইডি তথ্য সংগ্রহকারীর ভূলের খেসারত

নিজস্ব প্রতিবেদক: ন্যাশনার আইডি কার্ড প্রদানের লক্ষে তথ্য সংগ্রহকারী কর্তৃক জন্ম তারিখ ভূল করায় রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বটতলী এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা বীরেন্দ্র নাথ মুরারীর ভাতা ২০১৫ সাল থেকে বন্ধ রয়েছে। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত সরকারী ভাতা পান বলে জানান বীরেন। তিনি বলেন, ২০০১ সাল থেকে তিনি মুক্তিযোদ্ধা ভাতা উত্তোলন করে আসছিলেন। হঠাৎ করে তাঁকে ভাতা দেওয়া বন্ধ করে দেয় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। বীরেন বলেন, তঁর ভাতা কার্ড এবং জন্ম নিবন্ধনীতে ৫ জানুয়ারী ১৯৫৩ সাল উল্লেখ রয়েছে। অথচ সে সময়ে তথ্য সংগ্রহকারী বটতলী আদিবাসী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষক যোগেন উরাও তাঁকে কোন কিছু জিজ্ঞাসা না করেই ১৩ জুলাই ১৯৬২ সাল জন্ম তারিখ তথ্য পত্রে উল্লেখ করেন। সেই মোতাবেক জাতীয় পরিচয় পত্রে জন্ম, তারিখ উল্লেখ করেন কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে নির্বাচন কমিশন অফিসে জাতীয় পরিচয় পত্রে জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য ২০১৭ সালে আবেদন করেন। তিন বছর পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত এর সুরাহা হয়নি।
বীরেন বলেন, তার শরীরের অবস্থা এখন অনেকটাই খারাপ। একমাত্র ছেলে মারা যাওয়ায় তিনি অসহায় হয়ে পড়েছেন। দুই মেয়ে রয়েছে। তারাও বিয়ে করে শশুর বাড়িতে স্বামীর সংসার করছে। তাঁকে দেখার কেউ নাই। এই বৃদ্ধ বয়সে অসুস্থ শরীর নিয়ে পরের বাড়িতে দিনমজুরী করে স্ত্রীকে নিয়ে কোনমতে খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছেন। ভাতা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তিনি এখন মানবেতর জীবন যাপন করছেন। গতকাল বটতলী গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা বীরেন্দ্র নাথ মুরারী বাড়িতে গেলে তিনি তার ২৯ ডিসেম্বর ২০০৪ সালে ইস্যুকৃত সনদ পত্র ও মুক্তি বার্তা নম্বর ০৩০২০৯০০১৩ দেখান। এছাড়াও ১৯৭২ সালে ক্যাপ্টেন ডি.এস ধিলন-ক্যাম্প কমান্ডেন্ট, ন্যাশনাল মিলিটারী ক্যাম্প রাজশাহী কর্তৃক স্বাক্ষরীত আরেকটি সনদও তিনি দেখান। সেই সনদে ধিলনের সিলও রয়েছে।
বীরেন আরো বলেন, জীবন বাজি রেখে দেশের জন্য মুক্তিযুদ্ধ করেছিলেন। অনেকেই সে সময়ে যুদ্ধের সুযোগ নিয়ে বহু সম্পদের মালিক হয়েছে। কিন্তু তিনি অদ্যবধি একজন ভূমিহীন মুক্তিযোদ্ধা। বাড়িটিও রয়েছে সরকারী খাসের উপর। সরকার অনেক মুক্তিযোদ্ধাকে পুনর্বসান করেছেন। কিন্তু তাঁকে পুনবার্র্সনতো দূরের কথা ভাতা পর্যন্ত বন্ধ করে দিয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তাঁর জাতীয় পত্রে জন্ম তারিখ সংশোধন করে পুণরায় মুক্তিযোদ্ধা ভাতা চালু করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন মুক্তিযোদ্ধা ধীরেন নাথ মুরারী। বরেন্দ্র বার্তা/ফকবা/অপস

Close