আন্তর্জাতিকশিরোনাম-২

বন্ধ হয়ে গেল ওয়াশিংটন পোস্টের প্রিন্ট সংস্করন

বরেন্দ্র বার্তা ডেস্ক: তথ্যপ্রযুক্তির বিস্তারের ফলে ছাপা পত্রিকার প্রতি মানুষের আগ্রহ কমে যাচ্ছে। মানুষ এখন অনলাইনেই খবর পড়তে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। প্রযুক্তির এই ধাক্কায় ওয়াশিংটন পোস্টের ফ্রি সংস্করণ ‘এক্সপ্রেস’ বন্ধ হয়ে গেছে।
বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটন পোস্টের ফ্রি সংস্করণ ‘এক্সপ্রেস’ সর্বশেষ সংখ্যাটি প্রকাশ করে শিরোনাম দেয়, ‘আশা করি আপনারা দুর্গন্ধময় মোবাইল ফোনই উপভোগ করবেন।’
মূলত মেট্রো যাত্রীদের জন্য বিনামূল্যের এই পত্রিকা সরবরাহ করা হতো। এ বিষয়ে পত্রিকাটির সম্পাদক মারটিন বারন বলেন, ‘পাঠকদের ক্রমবর্ধমান ডিভাইস ব্যবহার এবং ছাপা সংস্করণে বিজ্ঞাপনের অপ্রতুলতার কারণে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমরা যারা প্রিন্টের রোমাঞ্চ ভালোবাসি, তাদের জন্য এটা অত্যন্ত কঠিন সময়।’
সম্পাদক আরও বলেন, ‘মোবাইল প্রযুক্তিতে প্রকাশনার তালিকায় এক্সপ্রেস যুক্ত করুন। দুঃখের বিষয়, এটি আমাদের চূড়ান্ত সংস্করণ।’
ওয়াশিংটন পোস্টের অনলাইন ভার্সনে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, ছাপা প্রকাশনা বন্ধের ফলে প্রায় ২০ জন সাংবাদিককে বিদায় দেওয়া হয়েছে।
এক বিবৃতিতে ওয়াশিংটন পোস্টের মেট্রো প্রকাশনা বন্ধের কারণ হিসেবে মেট্রো স্টেশন ও ট্রেনগুলোতে ওয়াইফাই সক্ষমতা বৃদ্ধির দিকে ইঙ্গিত করা হয়েছে।
বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এক্সপ্রেস’ ওয়াশিংটনবাসীর জন্য সকালের যাতায়াতের সময় একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছিল। এটি একটি প্রাণবন্ত, অত্যন্ত আকর্ষক প্রকাশনা, যা বছরের পর বছর ধরে ওয়াশিংটন মেট্রো পাঠকদের সেবা দিয়ে আসছে।
কর্তৃপক্ষ বলছে, পাঠকের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে ডিজিটাল ভার্সনের ওপরই নির্ভর করতে হবে।
প্রসঙ্গত, ১৬ বছর ধরে প্রকাশিত হয়ে আসছিল ওয়াশিংটন পোস্টের ফ্রি সংস্করণ ‘এক্সপ্রেস’ যা ২০০৭ সালে সর্বোচ্চ চাহিদায় পৌঁছায়। তখন এর বিতরণ সংখ্যা ছিল এক লাখ ৯০ হাজার। বিজ্ঞাপন আয়ও তখন ছিল সবচেয়ে বেশি। কিন্তু বিনামূল্যে পেয়েও মানুষ এখন আর পত্রিকাটি গ্রহণ করছে না। এর ফলে বিতরণ সংখ্যা এক লাখ ৩০ হাজারে নেমে আসে।
একই অবস্থা মূল ওয়াশিংটন পোস্টের ক্ষেত্রেও। তাদের মুদ্রণ সংস্করণের চাহিদা ক্রমাগত নিম্নমুখি হওয়ায় অনলাইন জার্নালিজমের দিকে মনোযোগ দিয়েছে ওয়াশিংটন পোস্ট যা এখন একইসঙ্গে একটি ডিজিটাল টিভি, রেডিও এবং পত্রিকা। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close