অর্থ ও বাণিজ্যনাগরিক মতামতশিরোনাম-২

বাঙালির ব্যাংক

বরেন্দ্র বার্তা ডেস্ক: ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রধান ব্যাংক ইউনাইটেড ব্যাংক অব ইন্ডিয়াকে (ইউবিআই) বলা হয় ব্যাংক ‘ফর দ্য বেঙ্গলি, বাই দ্য বেঙ্গলি, অব দ্য বেঙ্গলি’। যে ব্যাংকের উদ্যোক্তারা সবাই বাঙালি আর ব্যাংকটির জন্মের সঙ্গে আছে বাংলার ঐতিহ্যবাহী জনপদ কুমিল্লার নাম। বাঙালির এই ব্যাংক সমগ্র ভারতবর্ষের গর্ব।
১৯৫০ সালের ১৮ ডিসেম্বর, কুমিল্লা ব্যাংকিং কর্পোরেশন, বেঙ্গল সেন্ট্রাল ব্যাংক, কুমিল্লা ইউনিয়ন ব্যাংক এবং হুগলি ব্যাংক মিলে গঠিত হয় ইউনাইটেড ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (ইউবিআই)। ওই চারটি ব্যাংকেরই প্রতিষ্ঠাতা চার বাঙালি।
সবার আগে তৈরি হয় কুমিল্লা ব্যাংকিং কর্পোরেশন। ১৯১৪ সালে কুমিল্লার আইনজীবী এন সি দত্ত পত্তন করেন কুমিল্লা ব্যাংকিং কর্পোরেশনের। মাত্র ৩০০০ টাকা ছিল সম্বল।
এরপর ১৯১৮ সালে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক জ্যোতিষচন্দ্র দাস তৈরি করেন বেঙ্গল সেন্ট্রাল ব্যাংক।
ব্যাংকিং ব্যবসায় অভিজ্ঞ কুমিল্লার ইন্দুভূষণ দত্ত ১৯২২ সালে স্থাপন করেন কুমিল্লা ইউনিয়ন ব্যাংক। আর উত্তরপাড়ার জমিদার, স্বাধীনতা সংগ্রামী এবং ধনেখালির তৎকালীন বিধায়ক ধীরেন্দ্রনারায়ণ মুখোপাধ্যায়ের হাতে ১৯৩২ সালে তৈরি হয় হুগলি ব্যাংক লিমিটেড, যার সদর দফতর ছিল কলকাতার ধর্মতলায়।
ইউবিআই জন্মলগ্ন থেকে যেসব অঞ্চলে ব্যাংকিং সেবা পৌঁছায়নি, সেসব অঞ্চলে ব্যাংকের শাখা খোলার ব্যাপারে বেশি উৎসাহ দিয়েছে। যখন সুন্দরবনের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যাংকিং পরিষেবা প্রায় ছিলই না, তখন সেখানে হাজির হয়েছে ইউবিআই।
দক্ষিণ বাংলার সুন্দরবনের মানুষের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে জঙ্গল আর নদী। প্রত্যন্ত অঞ্চলে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাওয়ার জন্য একমাত্র নদীপথই ভরসা। নদীপথকে ব্যবহার করে সেখানে ব্যাংকিং চালু করেছিল ইউবিআই। দুটি ভ্রাম্যমাণ লঞ্চে ব্যাংকের শাখা চালু করে তারা। সেগুলো বিভিন্ন অঞ্চলে ঘুরে ঘুরে মানুষকে ব্যাংকিং সেবা দিত। টাকা জমা দেওয়া ও তোলাসহ বিভিন্ন ব্যাংকিং পরিষেবা দেওয়ার জন্য এই লঞ্চ দুটিই ব্যাংকের শাখা হিসাবে কাজ করত। নদীবক্ষে ভ্রাম্যমাণ ব্যাংকের প্রচলন সুদূরপ্রসারী চিন্তা ও কুশলী উদ্যোগের প্রতিফলন।
ব্যাংকিং ব্যবস্থার ইতিহাসে উত্থান-পতন একটি সাধারণ ঘটনা। বিশ্বের নানা দেশে বহু নামিদামি ব্যাংক বিভিন্ন সময়ে সমস্যায় পড়েছে। কোনটি উঠে দাঁড়াতে পেরেছে, কোনটি ধরাশায়ী হয়েছে।
শুরুর কয়েক বছর পর ইউবিআই-ও একবার সমস্যায় পড়েছিল। একসঙ্গে বহু গ্রাহক এসে লাইন দিয়েছিলেন টাকা তুলে নেওয়ার জন্য। খবর চলে যায় পশ্চিমবঙ্গের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বিধানচন্দ্র রায়ের কানে। তিনি স্বয়ং চলে আসেন ব্যাংকের রয়্যাল এক্সচেঞ্জ প্লেস শাখায়। সেখানে একটা টেবিলের উপর উঠে দাঁড়িয়ে গ্রাহকদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। বলেন, ‘ব্যাংকে কোন সমস্যা নেই, সকলের টাকাই সুরক্ষিত। অযথা আতঙ্কিত হয়ে কেউ যেন টাকা তুলে না নেন।’ এ কথায় দেউলিয়া হওয়ার হাত থেকে সে যাত্রায় বেঁচেছিল ইউনাইটেড ব্যাংক। যে টেবিলের উপরে দাঁড়িয়ে বিধানবাবু বক্তব্য রেখেছিলেন, সেটি এখনও কলকাতার রয়্যাল এক্সচেঞ্জ প্লেস শাখায় সংরক্ষিত।
বিধানচন্দ্র রায় নিজেও ছিলেন ইউবিআই-এর গ্রাহক। এ ব্যাংকের গ্রাহক তালিকায় আরও আছেন নামকরা বহু মানুষ, যেমন- দেশের প্রাক্তন চার রাষ্ট্রপতি ফকরুদ্দিন আলি আহমেদ, জৈল সিংহ, প্রতিভা পাটিল ও প্রণব মুখোপাধ্যায়। এ ছাড়া রয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু, প্রাক্তন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধী, পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তী, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মতো ব্যক্তিত্ব।
ভারতের রাষ্ট্রপতি ফকরুদ্দিন আলি আহমেদের উদ্যোগে ইউবিআই-এর রজতজয়ন্তী বর্ষ উপলক্ষে ১৯৭৬ সালে রাষ্ট্রপতি ভবনে ব্যাংকের একটি শাখার উদ্বোধন হয়, যার পোশাকি নাম প্রেসিডেন্ট এস্টেট ব্রাঞ্চ। রাষ্ট্রপতি ভবনে এটাই কোনও ব্যাংকের প্রথম শাখা। পরে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের আমলে রাষ্ট্রপতি ভবনেই আরও বড় জায়গায় শাখাটি স্থানান্তরিত করা হয়।
বাংলার ছোট-বড় শিল্প সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে ইউবিআই-এর ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। রাজ্যের চা শিল্পে এই ব্যাংকই সব থেকে বেশি ঋণ দিয়েছে। এক সময়ে ব্যাংকের মোট ঋণের ৩০ শতাংশই পেত চা শিল্প। ঋণের আওতায় রয়েছে পাট শিল্পও। রাজ্যের বহু ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি শিল্প এবং স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে নিজের পায়ে দাঁড় করাতে ইউবিআই-এর ভূমিকা কম নয়।
ফুলের চাষ, কুমোরটুলির প্রতিমা শিল্প, তাঁত শিল্প, চিরুনি বা পিতলের জিনিস তৈরির মতো উদ্যোগকে চাঙ্গা করতেও এগিয়ে এসেছে ইউবিআই। হিমঘরগুলিকেও বিমুখ করেনি। ঋণ নিয়ে ব্যবসা বাড়িয়েছে বড় মাপের অনেক শিল্প সংস্থাও।
প্রথম যে বড় শিল্পগোষ্ঠীকে এই ব্যাংক ঋণ দেয়, সেটি হলো টাটা গোষ্ঠী। তাদের একটি কাপড়ের মিল ইউবিআই-এর থেকে ঋণ নেয়। বিড়লা গোষ্ঠীর প্রথম যে দুটি সংস্থা ইউবিআইয়ের দেওয়া ঋণের তালিকায় আসে, তারা হল হিন্দ সাইকেল এবং ইন্ডিয়ান রেয়ন। কলকাতার গ্র্যান্ড হোটেল বা ওবেরয় গোষ্ঠী, বেঙ্গল কেমিক্যালস, বেঙ্গল এনামেল, সরস্বতী প্রেস, মার্টিন বার্ন, টিস্কো ইত্যাদি সংস্থার ব্যবসা সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে ইউবিআই-এর ঋণের বড় ভূমিকা রয়েছে।
ইউবিআই-এর ৯০ শতাংশ আমানতই পশ্চিমবঙ্গসহ দেশের পূর্বাঞ্চলের গ্রাহকদের কাছ থেকে সংগৃহীত। একটি জাতীয় স্তরের ব্যাংক হলেও এই ব্যাংকের মোট ঋণের ৫০ শতাংশই খাটছে ভারতের পূর্বাঞ্চলে।
ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এক ঘোষণায় পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক, ওরিয়েন্টাল ব্যাংক অব কমার্স এবং ইউবিআই, এই তিনটি ব্যাংক মিলে নতুন একটি ব্যাংক তৈরি কথা জানিয়েছে। তার নামও হবে নতুন। ফলে হারিয়ে যাচ্ছে বাঙালির ব্যাংকের স্মৃতি এবং বহু স্মৃতিবিজড়িত ‘ইউবিআই’ নামটিও। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close