বগুড়াশিরোনাম-২

বগুড়ায় শিয়ালের উপদ্রব, দুদিনে আহত ২৪ নারী-পুরুষ

ষ্টাফ রির্পোট: বগুড়ার শাজাহানপুরে শিয়ালের ভয়ে আতঙ্কে এলাকাবাসী। বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত দুদিনে শিয়ালের কামড়ে ২৪ নারী-পুরুষ আহত হয়েছেন। তারা সবাই বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।
শিয়ালের ভয়ে লোকজন সন্ধ্যার পর বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না। আতংকিত গ্রামবাসীরা দিনের বেলায় লাঠি হাতে চলাফেরা করছেন। তারা একটি শিয়ালকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছেন। শিশুরা ভয়ে স্কুলে যায়নি।
বগুড়া পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর খোরশেদ আলম ও মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আরএমও ডা. শফিক আমিন কাজল এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যায় হঠাৎ করে বিপুলসংখ্যক শিয়াল গ্রামবাসীর ওপর হামলে পড়ে। বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত শিয়ালগুলো এলাকায় ঘুরে বেড়ায়। জনগণ লাঠিসোটা হাতে তাড়া করলে শিয়ালগুলো লোকালয় থেকে পালিয়ে যায়। গ্রামের লোকজন শিয়ালের কামড়ের ভয়ে লাঠিসোটা নিয়ে চলাফেরা করেন। শিশুরা স্কুলে না গিয়ে তারাও হাতে লাঠি তুলে নিয়েছে।
শিয়ালের কামড়ে আহত বেতগাড়ি গ্রামের ওমিসা বেগম (৪০) জানান, বুধবার সন্ধ্যায় বাড়িতে কাজ করার সময় হঠাৎ শিয়াল এসে তার হাত ও পায়ে কামড় দিয়েছে। পুরো শরীর ব্যথা হয়ে গেছে; কাজ করতে পারছেন না।
বেতগাড়ি পশ্চিমপাড়ার ময়না বেগম (৩৫) জানান, বুধবার সন্ধ্যার দিকে বাড়িতে রান্না করার সময় শিয়াল এসে তার দুই হাতে কামড় দিয়ে পালিয়ে যায়। একই গ্রামের সুশান্ত রায়কে (২১) বাড়ির সামনে কামড় দিয়েছে একটি শিয়াল।
বিকাল পর্যন্ত শিয়ালগুলো কামড় দিয়ে ২৪ জনকে আহত করে। এ ছাড়া ৮-১০টি গরু-ছাগলকেও কামড় দেয় শিয়াল।
বগুড়া পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর খোরশেদ আলম জানান, বুধবার সন্ধ্যা থেকে বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত প্রায় ২৪ ঘণ্টায় শিয়ালের কামড়ে ২৪ নারী-পুরুষ আহত হয়েছেন।
তিনি আরও জানান, শিয়াল যাতে থাকতে না পারে সে জন্য বেতগাড়ি গ্রামের বিভিন্ন এলাকার সব গর্ত ভরাট করে দেয়া হয়েছে।
বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. শফিক আমিন কাজল জানান, শিয়ালের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে বুধবার রাতে ১১ জন এবং বৃহস্পতিবার ১৩ জন চিকিৎসা নিয়েছেন। বেশি অসুস্থ একজনকে ভর্তি করা হয়েছে।
শাজাহানপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফুয়ারা খাতুন জানান, বেতগাড়ি গ্রামের জনগণের ওপর শিয়ালের হামলার খবর পেয়েছেন। বাসস্থান ও খাবার সংকটের কারণে শিয়াল লোকালয়ে এসে এ হামলা চালাতে পারে। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close