চারঘাটশিরোনাম-২

চারঘাটে পুকুর পাড়ে সবজি চাষে বাড়তি আয়

মো: সজিব ইসলাম,চারঘাট প্রতিনিধি: রাজশাহীর চারঘাটে প্রায় প্রতিটি পুকুর পাড়ে ফল ও শাক-সবজি চাষ করা হচ্ছে। বিশেষ করে উচ্চ ফলনশীল পেঁপে আবাদে লাভ বেশি পাওয়ায় এ চাষে ঝুঁকছেন অনেকেই।
পুকুরে মাছ ও পাড়ে উচ্চ ফলনশীল পেঁপে চাষ করে বাড়তি আয় করছেন চারঘাট উপজেলার অনেক পুকুর মালিক। তাদের দেখাদেখি অন্যরাও বাড়তি আয়ের আশায় পুকুর পাড়ে পেঁপে ও ফলের বাগান করছেন। এমন এক পুকুর মালিক নিমপাড়া ইউনিয়নের আব্দুল কাদের। তিনি দুই একর জমিতে খনন করা পাঁচটি পুকুর পাড়ে পেঁপে চাষ করে বাড়তি আয়ের পথ খুঁজে পেয়েছেন।
আব্দুল কাদের বলেন, ১৫ টাকা দরে তিনশ’ পেঁপে চারা কিনে লাগাই। প্রথম বছরের ফলনেই খরচ উঠে আসে। পরের বছরে সামান্য খরচ ছাড়া সবটাই লাভ হয়েছে। বর্তমানে প্রতি মণ কাঁচা পেঁপে ৬শ’ টাকা করে বিক্রি করছি। এ আয় দিয়ে পুকুরের প্রায় অর্ধেক খরচ চলে। তার এমন সফলতা দেখে এলাকার অন্য পুকুর মালিকরাও পুকুর পাড়ে পেঁপে চাষে ঝুঁকছেন।
চারঘাট পৌরসভার আব্দুল হান্নান,সদর ইউনিয়নের রায়হানুল হক,শলুয়া ইউনিয়নের সবুর আলীর পুকুরসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার পুকুর মালিকরা জানান, তারা পুকুরে মাছ চাষের পাশাপাশি পাড়ে পেঁপে, বিভিন্ন জাতের আম, লিচু ও শাক-সবজি চাষ করে বাড়তি আয় করছেন। পাড়ে কাঠের গাছ রোপণ করলে ঝড়, তুফান ও বৃষ্টিতে গাছগুলো পাড়সহ ভেঙে পড়ার আশঙ্কা থাকে। ফলে ক্ষতির সম্মুখীন হন পুকুর মালিকরা । তাই কৃষি ও মৎস্য কর্মকর্তাদের পরামর্শে পুকুর পাড়ে পেঁপে, কলম কাটা আম, লিচু আবাদ ও শাক-সবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছেন তারা।
উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্যমতে, চারঘাট উপজেলায় চার হাজার ১২৮টি পুকুর রয়েছে। তাছাড়া বিলে আস্তে আস্তে নাব্যতা হারানোর কারণে বিলেও অনেক পুকুর খনন করা হয়েছে। এছাড়াও সরকারী পুকুর রয়েছে ২৮ টি।
উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম বলেন, উপজেলার জলাশয় বা পতিত জমিতে পুকুরে মাছ চাষের পাশাপাশি পাড়ে পেঁপে, শাক-সবজি বা ফলের বাগান বাড়াতে কৃষকদের সার্বক্ষণিক পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মুহাম্মদ মুনজুর রহমান বলেন, এরমধ্যে অনেকে তাদের পুকুর পাড়ে পেঁপে, শাক-সবজি চাষ করে সফল হয়েছেন।মাছের সাথে সবজি চাষ লাভজনক। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close