মহানগরশিরোনাম-২

রাজশাহীতে মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিন ও আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ ২ অক্টোবর আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস। ২০০৭ সালের জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সদস্যবৃন্দ ২ অক্টোবরকে আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস করার ব্যাপারে ভোট দেন এরপর সাধারণ পরিষদ তার সদস্যদের কাছে অহিংসার বার্তা দিয়ে ২ অক্টোবর দিবসটি পালনের ব্যাপারে ঘোষণা দেয় ৷ ২ অক্টোবরকে বেছে নেবার কারন এদিন অহিংসা আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা মহাত্মা গান্ধীর জন্মদিনকে কেন্দ্র করে।
অহিংসা বলতে বোঝায় হিংসা থেকে দূরে থাকা। হিংসা থেকে দূরে থাকাই এ দিবসের মূল কথা।
পৃথিবীর অসহিষ্ণুতা, উত্তেজনা, সহিংসতা বন্ধে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অবিসংবাদিক নেতা মহাত্মা গান্ধীর অহিংস আন্দোলন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।
মারাদেশের মত রাজশাহীতেও নানা আয়োজনে মহাত্বা গান্ধীর জন্মদিন ও আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস পালিত হয়েছে।
আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস উপলক্ষে বুধবার সকালে নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে মানববন্ধন ও শান্তি পদযাত্রার আয়োজন করে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)।
সুজন রাজশাহী মহানগর শাখার সভাপতি পিয়ার বক্সের সভাপতিত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সুজন রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল আলম মাসুদ, পীস স্পেশাল গ্রুপ (পিসিজি) পীস এম্বাসেডর মহেশ চন্দ্র সরকার, ক্যাব রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মামুন।
মানববন্ধন পরিচালনা করেন পিসিজি এর সমন্বয়কারী মিজানুর রহমান।
মানবন্ধনে বক্তারা বলেন, বিশ্ব থেকে হিংসা, বিদ্বেষ, হানাহানি, মারামারি, অসহিষ্ণুতা ও রক্তপাত বন্ধে বিশ্ববাসীকে সচেতন করতে প্রতিবছর বিশ্ব অহিংস দিবস পালন করা হয়। বাংলাদেশসহ বৈশ্বিক পরিস্থিতি আজ অস্থিরতাপূর্ণ এবং সংঘাতময়। ধর্মীয় মৌলবাদী ও জঙ্গীবাদী শক্তির অপতৎপরতা যেভাবে দেশে দেশে ছড়িয়ে পড়েছে তা সচেতন মানুষের কাছে অস্বস্তিদায়ক। এমনই এক অবস্থান থেকে আমরা সবাই যদি স্ব স্ব অবস্থান থেকে না জেগে উঠি তবে এক অন্ধকার ভবিষ্যত আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে।
এরপর তারা সচেতনতামূলক বিভিন্ন স্লোগান সংবলিত লিফলেট বিতরণ করেন ।
অন্যদিকে , মহাত্মা গান্ধীর ১৫০ তম জন্ম বার্ষিকীতে রাজশাহীতে রক্তদান কর্মসূচি পালিত হয়েছে । আজ বুধবার সকালে রাজশাহী কলেজ প্রাঙ্গনে এ কর্মসূচির আয়োজন করে ভারতীয় হাই কমিশন।
বুধবার সকাল ১০ নিজে রক্তদান করে এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার সঞ্জিব কুমার ভাটি। আরও উপস্থিত ছিলেন, এডমিনিষ্ট্রেশন কর্মকর্তা বিকাশ গুপ্তা, এসিস্টেন্ট কাউন্সিলর অফিসার শচীন কুমার প্রভাত, রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ‍মুহা. হবিবুর রহমান, উপাধ্যক্ষ আব্দুল খালেক প্রমুখ।
এছাড়া রাজশাহীর বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
কর্মসূচিতে সহযোগীতা করে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বাঁধন রাজশাহী কলেজ ইউনিট এবং স্বজন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ শাখা। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close