মহানগরশিরোনাম-২

নগরীতে জেলা বিএনপি’র জনসমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী জেলা বিএনপি ও অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে রোববার বিকেলে জনসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। দেশ বিরোধী চুক্তি ও বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদকে নৃশংসভাবে হত্যার প্রতিবাদে এবং প্রতিহিংসার শিকার দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তির দাবীতে এই জনসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। নগরীর মালোপাড়াস্থ বিএনপি কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সদস্য ও জেলা বিএনপি’র আহবায়ক আবু সাঈদ চাঁদ। প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট শাহীন শওকত। প্রধান বক্তা ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক, সাবেক রাসিক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপি’র যুগ্ম আহবায়ক সাইফুল ইসলাম মার্শাল, জেলা বিএনপি’র সাবেক সভাপতি এ্যাডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন তপু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট মতিউর রহমান মন্টু, জেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব বিশ্বনাথ সরকার, অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, সাবেক এমপি আব্দুস সাত্তার মন্ডল ও জাহান পান্না। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন জেলা বিএনপি’র সদস্য গোলাম মোস্তফা মামুন।
আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি’র সদস্য আলী হোসেন, ডিএম জিয়াউর রহমান, রোকোনুজ্জামান আলম, আনিসুল হক মিন্টু, সৈয়দ মোহাম্মদ মহসিন, রায়হানুল আলম রায়হান, আব্দুর রাজ্জাক, অধ্যাপক আব্দুস সামাদ, সাইদুর রহমান মন্টু, সুমন চেয়ারম্যান, তাজমুল তান টুটুল, আনোয়ার হোসেন জুম্মা, আব্দুস সালাম, আবু হেনা কামরুজ্জামান, এ্যাডভোকেট সামসাদ বেগম মিতালী ও আশরাফুল কবির বুলু। এছাড়াও জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল আলম সমাপ্ত, সহ-সভাপতি সুলতান আহম্মেদ, মোজাফ্ফর হোসেন মুকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক জুলফিকার রহমান ভুট্টো, জেলা সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নুসরাত এলাহী রিজভী, সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউজ্জামান পরাগ, জেলা মহিলা দলের সভাপতি রোকাসানা বেগম টুকটুকি, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম জনি ও সহ-সভাপতি রবিউল ইসলাম কুসুমসহ জেলা বিএনপি’র অন্যান্য সদস্য এবং উপজেলা, থানা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডের বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথি, প্রধান বক্তা ও সভাপতিসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বলেন, এই সরকার ভারতের নিকট দেশ বিক্রি করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। ভারতের নিকট থেকে কিছু নিতে না পারলেও দিয়ে আসতে পেরেছেন প্রধানমন্ত্রী। তিস্তা ও ফারাক্কা নিয়ে কোন চুক্তি না করতে পারলেও ফেনি নদীর পানি ভারতকে দেওয়ার জন্য চুক্তি করে এসেছেন বর্তমান অবৈধ প্রধানমন্ত্রী। ভারতে প্রধানমন্ত্রীকে সন্তষ্ট করাই হচ্ছে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কাজ। আর এর প্রতিবাদ করে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেওয়ার বুয়েটের মেধাবী শিক্ষার্থী আববার ফাহাদকে প্রধানমন্ত্রীর হাতে গড়া ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা নির্মনভাবে রাতের অন্ধকারে কক্ষে বন্ধ করে অ-মানষিক নির্যাতন করে হত্যা করেছে। জাহেলিয়া যুগকে ছাড়িয়ে এই সকল সন্ত্রাসীরা ফাহাদকে নির্যাতন করেছে। এই নৃশংস হত্যার তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ছাত্রলীগের খুনিদের দ্রুত আেিনর বিচারের মাধ্যমে দেশের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবী করেন তারা।
তারা আরো বলেন, বর্তমান অবৈধ সরকারের নেতা, এমপি, মন্ত্রী, ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কুলাঙ্গার সন্তানেরা হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাট করে দেশের বাহিরে পাচার করেছে। যুবলীগের সুর্য্যসন্তানের ক্যাসিনোর মাধ্যমে মসজিদের রাজধানীকে জুয়ার রাজধানীতে পরিণত করেছে। সেইসাথে সকল টাকা বিদেশে পাচার করেছে। এর ভাগ আওয়ামী লীগের প্রধানসহ এমপি, মন্ত্রীরা নিয়েছে। বর্তমান সরকারের দোসররা টাকার পাহাড় গড়ে তুললেও তাদের বিচার করা হচ্ছে না। অথচ তিনবারের সফল প্রধানমন্ত্রী, গণতন্ত্রের মানষকন্যা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সামান্য দুই কোটি টাকা আত্মস্বাতের মিথ্যা মামলা সাজিয়ে সাজা দিয়ে অন্ধকার কারাগারে রেখেছে। খুনিরাও জামিন পেলেও কোন প্রকার অন্যায় না করে শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসা করে এই ফ্যাসিস্ট সরকার বেগম খালেদা জিয়াকে জামিন দিচ্ছে না।
বক্তারা বলেন, তারুন্যের অহংকার, আগামীর রাষ্ট্র নায়ক বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে মিথ্যা মামালা দিয়ে দেশের বাহিরে থাকতে বাধ্য করেছে। এখন আর বেগম জিয়ার মুক্তির জন্য এই সরকারের নিকট কোন দাবী নয়। কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে বেগম জিয়াকে মুক্ত ও তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে তত্বাবধায়ক সরকারের অধিনে নির্বাচনের জন্য এই সরকারকে বাধ্য করা হবে। আর এই আন্দোলনে সকল প্রকার দ্বিধাদন্দ ভূলে দলের নেতৃকার্মীদের জীবন বাজি রেখে রাজপথে নামার আহবান জানান বক্তারা। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close