পবাশিশু বার্তা

লফস এর আয়োজনে পবা উপজেলায় শিশু অধিকার বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি: আজ সোমবার ( ১৪ অক্টোবর) পবা উপজেলা বারনই মিনি সভা কক্ষে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা লেডিস অর্গানাইজেশন ফর সোসাল ওয়েলফেয়ার (লফস) এর আয়োজনে বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের সহযোগিতায় পবা উপজেলা শিশু কল্যাণ বোর্ডের সদস্যদের নিয়ে Dialogue/advocacy with local administration and concerned authorities (including law enforcing agencies) to address the child rights issues at local context বিষয়ক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় পধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আলোচনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও শিশু কল্যাণ বোর্ডের সভাপতি মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন।
সভায় উপজেলা শিশু কল্যান বোর্ডের সদস্য সচিব ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ তৌহিদুজ্জামান শিশু কল্যান বোর্ডের গত সভার রেজুলেশন পাঠ করেন এবং সভার আলোচ্য সূচী উপস্থাপন করেন। আলেচনা সভায় লফস এর নির্বাহী পরিচালক শাহানাজ পারভীন ২০১৯ সালের নয় মাসের শিশু নির্যাতন পরিস্থিতি উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন গত ৯ মাসে ১৩৮ জন শিশু বিভিন্ন ভাবে নির্যাতিত হয়েছে। তিনি উল্লেখ করেন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের বাইরেও অনেক ঘটনা ঘটে যার অনেকাংশে বিভিন্ন কারনে প্রকাশ পায় না। শিশু নির্যাতন এখন সামাজিক ব্যধিতে পরিনত হয়েছে। বর্তমান শিশু আইন এর অধিনে শিশু নির্যাতন এর জন্য কঠোর শাস্তি বিধান রয়েছে কিন্তু বাস্তবতায় আইনের প্রয়োগ যথাযথ না হওয়া অনেক ক্ষেত্রে শিশু নির্যাতনের জন্য দায়ী। সমাজে প্রতিনিয়ত শিশুরা নির্যাতিত হচ্ছে। শিশু শ্রম বৃদ্ধি পাচ্ছে, গৃহকর্মে শিশুরা নিরাপদ নয়। বাল্য বিবাহ শিশু নির্যাতনের মাত্রা বৃদ্ধি করছে এর সাথে রয়েছে পরকীয়ার মধ্যে জঘন্য অপরাধ যা বর্তমানে অহরহ ঘটে চলেছে। পরকীয়ার ফলে মা তার সন্তানকে হত্যা করছে। শিশু নির্যাতনের বাস্তব চিত্র অন্যরকম উল্লেখ করে তিনি বলেন শুধুমাত্র সংবাদ পত্রে প্রকাশিত ঘটনার আলোকে বুঝা যায় আমরা কোন পরিস্থিতির মধ্যে আছি। সারা দেশের মতো রাজশাহীতে শিশু নির্যাতন হচ্ছে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন কায়দায়। শিশু শ্রমিক নিয়োগ না দেওয়ার বিধান থাকলেও এর কার্যকরীতা খুব একটা দেখা যায় না। গৃহ কর্মে বিশেষ করে কন্যা শিশুরা প্রতিনিয়ত অমানুবিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। পশাপাশি শিশু ধর্ষন ক্রমশই বাড়ছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরাও শিশু ধর্ষন এর মতো জঘন্যতম অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। আমরা এখনও যদি শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার না হয় তাহলে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মকে ধংসের মূখে পতিত হবে। আসুন বিশ^ শিশু দিবসে আমাদের অঙ্গিকার হোক নিজ পরিবার থেকে সর্বত্র শিশু অধিকার রক্ষায় নিজে ভূমিকা রাখবো এবং অন্যকে উৎসাহিত করবো। শিশু নির্যাতন কে না বলা শুরু করি। সভায় প্রধান অতিথী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন বলেন বর্তমান সরকার শিশু বান্ধব। শিশু নির্যাতন কোন ক্রমেই মেনে নেওয়া হবে না। নির্যাতিত শিশুর প্রতি শিশু কল্যাণ বোর্ড যেন সর্বাতক সহযোগিতা প্রদান করে তার নির্দেশনা দেন। একই সাথে বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে সামাজিক সচেনতা বৃদ্ধি ও শিশু শ্রমে নিয়োজিত শিশুদের চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করার জন্য বলেন। তিনি শিশু নির্যাতনের ভিকটিমকে সরজমিনে দেখার জন্য সংশ্লিস্টদের প্রতি আহবান জানান। সভায় নওহাটা সরকরী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামিম আরা, সমাজসেবী ও ব্যবসায়ী আব্দর রাজ্জাক, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শিমুল বিল্লাহ্ সুলতানা, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ মোখলেসুর রহমান, লফস এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার সালাউদ্দিন উম্মক্ত আলোচনায় অংশ গ্রহন করে শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সহ শিশু অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করার জন্য নিজ নিজ মতামত সভায় তুলে ধরেন। আলোচনা সভাটি লফস এর প্রোগ্রাম এসিসটেন্ট সুলতানা রিজিয়া পরিচালনা করেন। আলোচনা সভাটি পরিচালনায় সার্বিক ভাবে সহযোগিতা করেন উপজেলা শিশু কল্যাণ বোর্ডের সদস্য সচিব ও উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার মোঃ তৌহিদুজ্জামান। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close