বাগমারাশিরোনাম

বাগমারায় গ্রহবধুকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

বাগমারা প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারায় এক গৃহবধুকে পিটিয়ে মুখে বিষ দিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত গৃহবধুর নাম শিমআরা বেগম (২৮) । তিনি উপজেলার বড়বিহানালী ইউনিয়নের কুলিবাড়ী গ্রামের রহিদুল ইসলামের স্ত্রী ও মাড়িয়া ইউনিয়নের কাঁঠালবাড়ী গ্রামের সাইফুল ইসলামের মেয়ে। বাগমারা থানার পুলিশ নিহত গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। ওই ঘটনায় নিহত গৃহবধুর বাবা সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জানা যায়, উপজেলার মাড়িয়া ইউনিয়নের কাঁঠালবাড়ি গ্রামের সাইফুল ইসলাম মেয়ে শিমআরার সাথে একই উপজেলার বড়বিহানালী ইউনিয়নের
কুলিবাড়ী গ্রামের আহসান আলীর ছেলে রহিদুল ইসলামের সাথে বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী, স্ত্রীর মধ্যে কলহের সৃষ্টি লেগেই থাকত। গত
বৃহস্পতিবার রহিদুল ইসলাম ও স্ত্রী শিমআরার মধ্যে ঝগড়া হয়েছিল। ঝগড়ার এক পর্যায়ে স্বামী রহিদুল ইসলাম স্ত্রী শিমআরা বেগমকে বেদম মারপিট
করেছিল। বিষয়টি নিয়ে মেয়ের পরিবারের সাথে স্বামী সাইফুল ইসলামের পরিবারের মিমাংসা হয়েছিল। মিমাংসা শেষে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে গৃহবধু শিমআরা সবার অজান্তে স্বামীর বাড়িতে বিষ পান করে ।

পরিবারের লোকজন বিষয়টি জানার পর তাকে দ্রুত স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গৃহবধূ শিমআরা মৃত্যু
বরন করেন। খবর পেয়ে বাগমারা থানার পুলিশ হাসপাতালে যান এবং নিহত গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। রাতেই মেয়ের বাবা সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে জামাই সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ এনে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। পুলিশ লিখিত অভিযোগটি ইউডি মামলা হিসেবে দায়ের করেন। শিমআরার বাবা সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করেন, জামাই সাইফুল ইসলাম তার মেয়েকে পিটিয়ে হত্যার পর মুখে বিষ ঢেলে দিয়েছে। তিনি তার মেয়ে হত্যার বিচারের দাবী করেছেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বাগমারা থানার ওসি আতাউর রহমান বলেন, হাসপাতাল থেকে বিষ পান করে আত্মহত্যা করা এক গৃহবধুল লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়না তদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে বলে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।
বরেন্দ্র বার্তা/ আম/ নাসি

Close