মহানগরশিরোনাম

রাবি শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাত টানা ২দিন মহাসড়ক অবরোধ, আটক ৩

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের প্রথম বর্ষের ফিরোজ নামের এক শিক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার রাত পৌনে ৮টায় শহীদ হবিবুর রহমান মাঠে এ ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার পর থেকে নিরাপদ ক্যাম্পাসের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রধান ফটকের সামনে রাত ৯টা থেকে শুরু হয়ে এখনো পযর্ন্ত ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। এদিকে আন্দোলনকারীদের তোপের মুখে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, নগরীর তালাইমারী এলাকার জাহিদের ছেলে রুবেল হোসেন (২৪) এবং শিরোইলের স্থানীয় ছবির হোসেনের ছেলে রিফাত হোসেন। আরেকজনের নাম জানা যায়নি। অন্যদিকে ভুক্তভোগী অর্থনীতি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ফিরোজ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন আছেন।

এদিকে শনিবার সকাল থেকেই শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার লক্ষ্যে প্রফেসর ড. লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে র‌্যাব ও পুলিশের টহল অব্যাহত রয়েছে।

সূত্র জানায়, শুক্রবার রাত ৯ টায় নিরাপদ ক্যাম্পাসের দাবিতে মহাসড়কে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। এতে রাস্তার দু’পাশে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। দুর্ভোগে পড়েন পথচারীরা। এর পরপরই সেখানে উপস্থিত হন বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ও অন্য সদস্যরা। শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক থেকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেন তারা। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে শিক্ষার্থী ও প্রক্টরিয়াল বডির সঙ্গে টানা হেচড়ার ঘটনা ঘটে। সেখানে সহকারী প্রক্টর হুমায়ন কবীর লাঞ্ছিত হন শিক্ষার্থীদের হাতে। পরে ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী কিশোরকে ডিবি পুলিশের হাতে তুলে দেন ভুক্তভোগী সহকারী প্রক্টর। এরপর মহসড়কে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের আন্দোলন আরও তীব্র আকার ধারণ করে। পরে প্রক্টর ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে। এবং আটকৃতকে ফেরত না দেওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে এবং সারারাত মহাসড়ক অবরোধের হুশিয়ারি দেন তারা। এরপরে আটককৃত কিশোরকে ডিবি পুলিশ ফেরত দিতে বাধ্য হয়। পরে প্রক্টর ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের বার বার অনুরোধের পর শনিবার ভোর ৪ টার দিকে অবরোধ কর্মসূচি শেষ করেন শিক্ষার্থীরা। সেখানে প্রক্টর শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নিয়ে দ্রুত বাস্তবায়নের আশ্বাস দেন।

জানা গেছে, শুক্রবার রাত আটটার দিকে শহীদ হবিবুর রহমান মাঠের তালগাছের নিচে ফিরোজ ও সঙ্গে থাকা একটি মেয়ের সঙ্গে বাকবিতন্ডা করে কয়েকজন যুবক। একপর্যায়ে ছুরি দেখিয়ে মানিব্যাগ, টাকাসহ সবকিছু দিতে বলে। এতে অস্বীকৃতি জানালে মাথায় ছুরিকাঘাত করে ছিনতাইকারীরা। পরে সঙ্গে থাকা মেয়েটি চিৎকার শুরু করে। এসময় ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত মোটর সাইকেলে মাদার বখশ হলের সামনে দিয়ে পালিয়ে যায় দূর্ভৃত্তরা। পরে আহত অবস্থায় ফিরোজকে উদ্ধার করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে রামেকে ভর্তি করা হয়। সঙ্গে থাকা মেয়েটি ফিরোজের স্ত্রী। তার বাড়ি রংপুর। একই কলেজে পড়াশোনা করেছেন।
বরেন্দ্র বার্তা/কাহাঅ/ নাসি

Close