বাগমারাশিরোনাম-২

বাগমারার কলেজ ছাত্রী তামান্না হত্যা; ১ জনকে আসামি করে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের সমষপাড়া গ্রামের ও সাধনপুর স্কুল এন্ড কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক ১ম বর্ষেরর ছাত্রী তামান্না আক্তার টিয়ার হত্যা ও ধর্ষণের মামলা নিতে নলডাঙ্গা থানা পুলিশের গরিমসি করেছে বলে অভিযোগ তুলেছে তামান্নার পরিবার।

নিহত তামান্নার পিতা রশিদ উদ্দিন বলেন,তামান্নার লাশ যেহেতু নলডাঙ্গা থানার আয়তায় পাওয়া গেছে সেহেতু মামলা সহ তদন্তের সকল বিষয়াদি তদারকি করছে নলডাঙ্গা থানা।রাতে আমরা মামলা করতে গেলে নলডাঙ্গা থানার তদন্ত কর্মকর্তা ওসি উজ্জল হোসেন তামান্না হত্যা কে নিছক আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে এবং এজহারে আত্মহত্যা বলে লিখে সেখানে সাক্ষর দিতে বলেন।কিন্তু সেটা পড়ার পর আমি সাক্ষর করিনি।

এ ব্যাপারে নিহত তামান্নার মামা আব্দুল আহাদ বলেন আমি লেখাটা দেখার পর প্রতিবাদ করি তবুও ওসি তার সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন। তারপর আমি আমার পরিচিত একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা কে জানানোর পর ওসি হত্যা মামলা নেন। হত্যা মামলায় একজন কে আসামী করা হয়েছে। আসামী হলেন পুঠিয়া উপজেলার সাধনপুর খিদিরপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে শান্ত ইসলাম (২১)।

এ বিষয়ে নলডাঙ্গা থানার তদন্ত কর্মকর্তা ওসি উজ্জল হোসেন এর সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য,বিগত শুক্রবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে নিজ বাড়ি থেকে তামান্না কে তুলে নিয়ে হত্যা করে বলে অভিযোগ উঠেছে শান্ত ইসলাম এর নামে।
বরেন্দ্র বার্তা/সরা/নাসি

Close