মহানগরশিক্ষাঙ্গন বার্তাশিরোনাম

ভর্তি পর জালিয়াতি প্রমানিত হলে বাতিল করা হবে- রাবি ভিসি

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ সম্মান শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ৯টায় কলা বিভাগের এ ইউনিটের গ্রুপ-১ এর পরীক্ষা দিয়ে দুই দিনের এই ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়। ভর্তি পরীক্ষাকে ঘিরে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিদ্যাপীঠ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিরাজ করছে উৎসবের আমেজ। তিনটি ইউনিটের অধীনে ৪ হাজার ৭১৩টি আসনের বিপরীতে এবার ৭৮ হাজার ৯০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। সোমবার পরীক্ষার প্রথম দিন সকাল ৯টা থেকে ১০টা ৪৫ পর্যন্ত ইউনিট-এ এর গ্রুপ-১ এর (রোল ১০০০১ থেকে ২৫৫৬৫ পর্যন্ত), বেলা ১১টা ৪৫ থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত ইউনিট-এ এর গ্রুপ-২ এর (রোল ৫০০০১ থেকে ৬৫৫৬৪ পর্যন্ত), বিকেল ৩টা থেকে ৪টা ৪৫ পর্যন্ত ইউনিট-বি এর গ্রুপ-১ এর (বাণিজ্য) রোল ১০০০১ থেকে ১৮৬৩৭ পর্যন্ত এবং গ্রুপ-২ (অ-বাণিজ্য) রোল ৮০০০১ থেকে ৮৭০৯৫ এর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

আাগমীকাল মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) সকাল ৯টা থেকে ১০টা ৪৫ পর্যন্ত ইউনিট-সি এর গ্রুপ-১ (বিজ্ঞান) এর রোল ১০০০১ থেকে ২৫২৫৭ পর্যন্ত, বেলা ১১টা ৪৫ থেকে দেড়টা পর্যন্ত ইউনিট-সি এর গ্রুপ-২ (বিজ্ঞান) রোল ৫০০০১ থেকে ৬৫২৫৬ পর্যন্ত এবং গ্রুপ-৩ (অ-বিজ্ঞান) রোল ৮০০০১ থেকে ৮০৭১৬ পর্যন্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

এবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় পরিবর্তন আনা হয়েছে। অন্যান্য বছর এমসিকিউ পদ্ধতিতে এক ঘন্টার ভর্তি পরীক্ষা হলেও এবছর এমসিকিউ ও সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর মিলে পরীক্ষার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে ১ ঘণ্টা ৪৫ মিনিট। এর মধ্যে প্রথম ৫০ মিনিট এমসিকিউ, পরবর্তী ১৫ মিনিট সংক্ষিপ্ত প্রশ্নোত্তর (এসএকিউ) পদ্ধতিতে পরীক্ষা দিতে হবে। পরীক্ষা চলাকালে কোনো পরীক্ষার্থী পরীক্ষা কক্ষের বাইরে যেতে পারবে না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক অধ্যাপক ড. প্রভাষ কুমার কর্মকার জানান, পরীক্ষার হলে কোনও ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস (ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন, হেডফোন, মেমোরিযুক্ত ঘড়ি) সঙ্গে আনা যাবে না। সকালে ভর্তি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান। এসময় উপ উপাচর্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা, উপ উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী মোঃ জাকারিয়া, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান আল আরিফ, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এমএ বারী, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক লায়লা আরজুমান বানু, প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক অধ্যাপক প্রভাষ কুমার কর্মকার উপস্থিত ছিলেন।

পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান জানান, ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি রোধে প্রশাসন সব ব্যবস্থা নিয়েছে। জালিয়াত চক্রের ফাঁদে পা না দিতে অভিভাবকদের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনারা কোনো প্রতারক ও জালিয়াত চক্রের খপ্পরে পড়বেন না। আপনাদের ছেলে মেয়ে নিজ মেধাতেই ভর্তির সুযোগ পাবে। মাঝখানে প্রতারক ও জালিয়াত চক্র আপনাদের বিভ্রান্তিতে ফেলে অবৈধ সুযোগ সুবিধা আদায় করতে পারে।’ উপাচার্য বলেন, পরক্ষায় উত্তীর্ণ শেষে ভর্তির পরও যদি কারো বিরুদ্ধে জালিয়াতির প্রমাণ মেলে, তার পরীক্ষা বাতিল করা হবে।

বরেন্দ্র বার্তা/ কাহাঅ/ নাসি

Close