জয়পুরহাটশিরোনাম-২

দুই পক্ষের কোন্দলে প্রতিবন্ধী বাজার ভাংচুর চাঁদা যায় প্রভাবশালীদের পকেটে

রিফাত আমিন রিয়ন, জয়পুরহাট প্রতিনিধি :জয়পুরহাটে প্রতিবন্ধীদের বাজারে ব্যবসা করছে প্রভাবশালীরা। আর সেই বাজারের চাঁদার টাকা চলে যাচ্ছে স্থানীয় স্টেশন মাস্টার, জিআরপি ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের পকেটে। এ নিয়ে দুই পক্ষের কন্দোলে প্রতিবন্ধীদের বউ বাজারে রবিবার বেলা ১২টার দিকে বাজারটি ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে।
জয়পুরহাট রেলস্টেশনের পূর্বে ওভার ব্রিজের উত্তর পার্শ্বে ২০১২ সালে প্রায় ৫০-৬০টি দোকান নিয়ে স্থানীয় প্রতিবন্ধীদের অর্থনৈতিক কল্যাণে গড়ে ওঠেছিল প্রতিবন্ধী বউ বাজার। এখানে মাছ বাজার, কাঁচা বাজার, শাক-সবজি, পান-সুপারী ফলমূলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যর বেচাকেনার জন্য এ বাজারটি গড়ে ওঠেছে। এ বাজারে প্রতিবন্ধী ব্যবসা করার কথা থাকলেও শুধুমাত্র ইয়াসিন নামে এক প্রতিবন্ধীকে সঙ্গে নিয়ে ব্যবসা করছেন প্রভাবশালী ব্যবসায়ীরা। এছাড়া এখানে কোন প্রতিবন্ধী ব্যবসায়ী নেই।
স্থানীয় ব্যবসায়ী হাফিজ, রওশন, ইউসুফ, তুফানসহ আরো অনেকে অভিযোগ করে বলেন, প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে প্রতিদিন দোকানপ্রতি ২৫টাকা করে মাসে প্রায় ৪৫হাজার টাকা চাঁদা তোলা হয়। আর এ টাকা প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে ব্যয় না করে চলে যাচ্ছে স্টেশন মাস্টার, জিআরপি পুলিশ ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের পকেটে। এ বাজারটি দুনীর্তির আখড়ায় পরিণত হওয়ায় ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে।
লাল সবুজ প্রতিবন্ধী কল্যাণ সমিতির জয়পুরহাটের সভাপতি জাকারিয়া ম-ল শিমুল বলেন, প্রতিবন্ধী বউ বাজার এলাকায় আমার বাড়ি। এ বাজারের নামে প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে ওঠানোর টাকা প্রতিবন্ধী ইয়াসিন নামে এক ব্যক্তি তুলে এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোকজন নিয়ে সে ভাগ বাটোরা করে নেয়। আমরা প্রকৃত প্রতিবন্ধীরা আজ বঞ্চিত। প্রতিবন্ধী নিয়াজ ইকবাল সুজন বলেন, আজকে আমাদের নামে এ বাজারের টাকা তুলে লুটপাট করে খাচ্ছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।
স্থানীয় বাজার কমিটির চেয়ারম্যান প্রতিবন্ধী ইয়াসিন আলী বলেন, স্টেশন মাস্টার, জিআরপি স্থানীয় ক্লাব ও ছেলেদের কিছু কিছু করে টাকা দিয়ে এসব ম্যানেজ করে বাজার চালানো হয়। বাকি টাকা প্রতিবন্ধীদের নিয়মিত সাহায্য সহযোগিতা করা হয়।
এ ব্যাপারে জয়পুরহাট স্টেশনের জিআরপি ক্যাম্প ইনচার্জ আরিফুল হক বলেন, প্রতিবন্ধী বাজারের টাকার নেওয়ার ব্যাপারে আমি কিছু জানিনা, এটা সত্য নয়, ভিত্তিহীন। এদিকে জয়পুরহাট স্টেশন মাস্টার হাবিবুর রহমান বলেন, এসব অবৈধ বাজার তুলে দেওয়ার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। এসব বাজার তুলে দেওয়া হবে তাদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার ব্যাপারটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। জয়পুরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ শাহরিয়ার খান বলেন, বউ বাজারের ব্যবসায়ীদের গন্ডগলের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আমি গিয়েছি এবং ঘটনা জানার জন্য ব্যবসায়ীদের থানায় ডেকে আনা হয়েছে। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close