বাঘা

বাঘার ৫ টাকায় দুপুরের খাবার হোটেলে চাল দিলেন কলেজিয়েট স্কুলের ০৩ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর বাঘায় সেই ৫ টাকায় শিক্ষার্থীদের দুপুরের খাবার হোটেলে চাল দিলেন রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ২০০৩ ব্যাচের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। গত শনিবার দুপুরে ১০০ কেজি চাল দিয়ে হোটেল মালিককে সহযোগিতা করেন তারা।

জানা যায়, শিক্ষার্থীর জন্য ৫ টাকায় তিন বছর থেকে দুপুরের খাবার সরবরাহ করে আসছেন উপজেলার আড়ানী পৌর বাজারের তালতলায় অন্নপূর্ণা হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টের মালিক বিপ্লব সরকার। এ বিষয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ দেখে রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুলের ২০০৩ সালের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা হোটেল মালিককে চাল দিয়ে সহযোগিতা করেন।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে তার বাবা শ্যামল সরকার আড়ানী বাজারে একটি খাবার হোটেল দেন। এ হোটেলে ৭১ সালের মুক্তিযোদ্ধাদের শ্যামল সরকার কোন কোন সময় খাবার সরবরাহ করতেন। তার ছেলে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিপ্লব সরকার এ কাজটি করে আসছেন তিন বছর থেকে। তবে প্রথম দিকে তার বাবাকে না জানিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে খাবার সরবরাহ করতো। তার বাবা এ বিষয়ে মাঝে মধ্যে বকাও দিত। কিন্তু বিপ্লব সরকার এ কাজ থেকে সরে আসেনি। বিপ্লবের বাবা যখন দুপুরে দিকে বাড়িতে চলে যায়। এ সময় বিপ্লব দোকানে বসেন। টিফিনের সময় আড়ানী সরকারি মনোমোহিনী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা দুপুরের খাবার খায়। ৫ টাকার বিনিময়ে পরিমান মতো ভাত, ডাল, একটু ভাজি ও ভর্তা দেয়া হয়। তবে সপ্তাহে এক দিন মাছ ও মাংস দেয়া হয়। যারা স্কুল ড্রেস পরে আসে শুধু তাদের মাঝে ৫ টাকার বিনিময়ে এ খাবার দেয়া হয়। যারা ড্রেস পরে আসে না তাদের খাবার দেয়া হয় না।

এ বিষয়ে বিপ্লব সরকার বলেন, ছাত্ররা প্রায় দিন টিফিনের সময় দুপুরে হোটেলে সিংগাড়া খেতে আসতো। তৈলাক্ত জিনিস খেলে সমস্যা হবে ভেবে তাদের কাছে থেকে ৫ টাকা নিয়ে ভাত খেতে দিতাম। কিছু কিছু সময় অবাক হয়ে ছাত্ররা খেয়ে চলে যেত। এভাবে ছাত্রদের সিংগাড়া না দিয়ে ভাত খেতে দিতাম। এখনো দিচ্ছি। তবে প্রতিদিন তার হোটেলে ৬০ থেকে ৮০ জন ছাত্র ৫ টাকার বিনিময়ে ভাত খায়। আমি অর্থনৈতিক দূর্দশার কারণে নবম শ্রেণি পর্যন্ত লেখা পড়া করেছি। সংসারের অভাব অনটনের কারণে হোটেলে বাবাকে সহযোগিতা শুরু করি। এখন বাবার অনেক বয়স হয়েছে। বাবাকে এখনোও সহযোগিতা করি। তবে হোটেলের পাশাপাশি বিপ্লব সরকারের লেপ তোশকের দোকান রয়েছে। আমি লেখাপড়া করতে পারেনি। ছোট ছোট ছেলেদের দুপুরে এ টাকার বিনিময়ে খাবার দিতে পেরে ভালো লাগে।

বিপ্লব সরকারের বাবা শ্যামল সরকার বলেন, ছেলের এ কাজ প্রথমে দেখে তাকে অনেক বকাবকি করতাম। বকাবকি করেও যখন কোন কাজ হলো না, হোটেলের দায়িত্বে ছেলেকে দিয়ে দিলাম। তবে ভালো চলছে।
এ বিষয়ে আড়ানী সরকারি মনোমোহিনী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধন শিক্ষক সঞ্জয় কুমার দাস বলেন, দীর্ঘদিন থেকে বিপ্লব সরকার ৫ টাকার বিনিময়ে দুপুরে শুধু শিক্ষার্থীদের মাঝে খাবার দেয় এটা শুনেছি।
আড়ানী পৌরসভার মেয়র মুক্তার আলী বলেন, আমি মাঝে মধ্যে তার হোটেলে দুপুরে খেতে যাই। সেখানে স্কুলের ছেলে-মেয়েরা ভাত খাওয়ার জন্য ভিড় জমায়। কিছু দিন পর জানতে পারি ৫ টাকার বিনিময়ে ছাত্রদের খাবার দেয়া হয়।
বরেন্দ্র বার্তা/ নাসি

Close