চারঘাটশিরোনাম

চারঘাটে বখাটেদের উৎপাত

মোঃ সজিব ইসলাম, চারঘাটঃ রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় স্কুল-কলেজ ও কোচিং-পাইভেট সেন্টারের আশপাশ ঘিরে বখাটেদের উৎপাত বেড়েছে। প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আশপাশে বখাটেদের অবস্থান এখন চোখে পড়ার মতো। কখনও এককভাবে আবার কখনও দলবদ্ধভাবে এসব বখাটে স্কুল-কলেজ, কোচিং পড়ুয়া মহিলা শিক্ষার্থীদের চলার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছে।
জানাজানি হলে সামাজিকভাবে পরিবারের ওপর নানা অপবাদ আসতে পারে- এমন ভয়ে ছাত্রীদের অভিভাবকরাও প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ করতে সাহস করেন না। ঝামেলা এড়াতে অনেক ক্ষেত্রে অভিভাবকরা মেয়েদের বাল্যবিবাহ দিতে বাধ্য হচ্ছেন। তাই বখাটেদের এই বিচরণ বন্ধ করতে পুলিশের নিয়মিত টহলের পাশাপাশি প্রতিনিয়ত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার দাবি সচেতন মহলের।
জানা গেছে, চারঘাট পৌর সদরের বিভিন্ন স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন এলাকার নামে-বেনামে গড়ে ওঠা কোচিং-পাইভেট প্রতিষ্ঠান ঘিরে বখাটেদের বিচরণ বাড়ছে।উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ নাজমুল হক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সামনে অভিযান পরিচালনা করলেও বখাটেরা ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করছে।শিক্ষার্থীরা স্কুলে প্রবেশ কিংবা ছুটির সময় বখাটেরা স্কুল গেট ও তার আশপাশে রোমিও সেজে অবস্থান করছে।
বখাটেরা সুযোগ বুঝে স্কুল ও কলেজগামী ছাত্রীদের অশালীন উক্তি ছুড়ে দিচ্ছে। বখাটেদের এসব অশালীন উক্তি স্কুল-কলেজগামী ছাত্রীরা নীরবে সহ্য করে গন্তব্যে যাচ্ছে। বিষয়টি ওপেন সিক্রেট হলেও এ ব্যাপারে কোনো প্রতিরোধ না থাকায় তা দিন দিন বেড়েই চলেছে। ছাত্রীদের মধ্যে অনেকেই বখাটে দ্বারা উৎপাতের শিকার হলেও লোকলজ্জার ভয়ে কেউ ঘটনা প্রকাশ করছে না। এতে ছাত্রীরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। ফলে এসব প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ছাত্রীদের অভিভাবকরা থাকেন দুশ্চিন্তায়।
সরদহ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন ছাত্রীর অভিভাবক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, সকালে বাচ্চা নিয়ে স্কুলে ঢুকার সময় স্কুল গেটে বহিরাগত ছেলেরা অনেকটাই বিরক্ত করে।আবার ছুটির সময়ও একই চিত্র দেখা যায়।
উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি ইউসুফপুর কৃষি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইমদাদুল ইসলাম বলেন,আমার নিজের প্রতিষ্ঠানের সামনেএ একই অবস্থা।বখাটেদের উৎপাতে শিক্ষার্থীরা অতিষ্ঠ।পুরো চারঘাটের চিত্রও একই রকম।শিক্ষকরা ইচ্ছে করলেও বখাটেদের সাথে সংঘাতে জড়াতে পারেনা।এটা একটি মহৎ পেশা।তারপরও নিজ নিজ অবস্থান থেকে আমরা চেষ্টা করছি বখাটেদের প্রতিরোধ করার।তবে প্রশাসন প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করলে ও এলাকার সব শ্রেনী পেশার মানুষ এগিয়ে আসলে এদের প্রতিরোধ করা সম্ভব।
এ বিষয়ে চারঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজমুল হক বলেন, বখাটেদের দৌরাত্ম্য বন্ধে আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সামনে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করছি।তবে এ বিষয়ে অভিভাবকদের আরো সতর্ক হবে হবে।সন্তানরা ঠিকমত স্কুল কলেজে যাচ্ছে কিনা সেটাও নিশ্চিত করতে হবে। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close