মহানগরশিরোনাম

রাজশাহীতে ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীতে এক যুবকের ছুরিকাঘাতে মো. ফাহিম (১৮) নামে কলেজছাত্র নিহত হয়েছেন। ফাহিম মহানগরীর পবা নতুনপাড়া এলাকার গোলাম রসুলের ছেলে।
একইসঙ্গে নিহত ফাহিমের বন্ধু যুবরাজ (১৯) গুরুতর আহত হয়েছেন। যুবরাজের বুকের ডান পাশে ছুরির আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে মহানগরীর শাহমখদুম থানার রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব) এবং রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (আরডিএ) প্রধান কার্যালয় সংলগ্ন এলাকায় তাদের ছুরিকাঘাত করা হয়। পরে তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যা ৭টার দিকে ফাহিম মারা যায়। তিনি নগরীর বরেন্দ্র কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র।
রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, সন্ধ্যায় রাকাব প্রধান কার্যালয়ের পেছনে দুই তরুণ এবং দুই তরুণী বসে গল্প করছিলেন। তখন এলাকার ছেলে ফাহিম এবং তার দুই বন্ধু যুবরাজ ও সৈকত গিয়ে তাদের বলেন, এখানে বসে থাকা যাবে না।
এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এরই একপর্যায়ে বান্ধবীর সঙ্গে বসে থাকা দুই তরুণের একজন ছুরি বের করে ফাহিম ও যুবরাজকে আঘাত করেন। এ সময় প্রাণভয়ে সৈকত পালিয়ে যান। এরপর ফাহিম ও যুবরাজ মাটিতে লুটিয়ে পড়লে হামলাকারী দুই তরুণ তাদের বান্ধবীদের নিয়ে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।
রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস জানিয়েছেন, সন্ধ্যার সময় ফাহিম ও যুবরাজকে হাসপাতালে আনা হয়। ফাহিমের বুকের বাম পাশে ছুরির আঘাত ছিল। আর যুবরাজের বুকের ডান পাশে আঘাত রয়েছে। যুবরাজ দাবি করেছেন, ছিনতাইকারীরা তাদের ছুরিকাঘাত করেছে।
যুবরাজের বরাত দিয়ে হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস আরও জানান, সন্ধ্যায় তারা রাকাব প্রধান কার্যালয় সংলগ্ন আরডিএ ভবনের পাশে বসেছিলেন। এমন সময় কয়েকজন ছিনতাইকারী এসে তাদের কাছে যা আছে দিয়ে দিতে বলে। তারা আপত্তি করলে তাদের ছুরিকাঘাত করা হয়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আরএমপির মুখপাত্র বলেন, ‘‘আমরা ছিনতাইকারীর বিষয়টি জানি না। বান্ধবীদের নিয়ে বসে থাকা দুই তরুণ এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলেই জানতে পেরেছি। তবে তাদের শনাক্ত করা যায়নি। তাদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।’’
এই ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close