নওগাঁশিরোনাম-২

নওগাঁর চাষীরা অধিক দামে জামাই সোহাগা চিনি আতব ধান বিক্রির স্বপ্ন দেখছেন

 

মো.মাহবুবুউল আলম,মহাদেবপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি : মোটা ধানের দাম কমে যাওয়ায় নওগাঁর চাষীরা এখন জামাই সোহাগা চিনি আতব ধান চাষ করে অধিক মূল্যে বিক্রি করার স্বপ্ন দেখছেন। শস্য ভান্ডার হিসাবে খ্যাত নওগাঁর জেলার মহাদেবপুর উপজেলার উত্তর ঈশ্বরপুর,আলীপুর,মনোহরপুর,রহিমপুর,রহট্রা,শালগ্রাম,হরিপুর,মহেশপুরসহ কিছু গ্রামের চাষীরা এই সুগন্ধি জামাই সোহাগা চিকন আতব ধানের চাষের উপর ঝুকে পড়েছেন। ওইসব এলাকার জমি আতব ধানের চাষের উপযোগী হওয়ায় উক্ত এলাকার জমিগুলোতে চাষীরা অন্য কোন ধান চাষ না করে এই ধান চাষ করেন। উত্তর ঈশ্বর পুরের আতব ধান চাষী মাসুদ রানা,পান্জু সরদার জানান, বিঘাপতি মোটা ধানের চেয়ে সুগন্ধি জামাই সোহাগা চিকন আতব ধান দ্বিগুণ টাকায় বিক্রি করা যায়। তারা বলেন, একমন মোটা ধান সাড়ে পাঁচ থেকে ৬শ টাকা বিক্রি হয় আর একমন চিনি আতব ধান ১৫শ থেকে ১৮শ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা যায় এবং বাজারে এই ধানের ব্যাপক চাহিদাও রয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবীদ অরণ চন্দ্র রায় জানান, এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় আতব ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন, এবার এ উপজেলায় ২৮হাজার ৮শ ৪০ হেক্টর জমিতে রোপা আমানের চাষ করা হয়েছে তার মধ্যে চিকন আতব ১০হাজার ৩শ হেক্টর জমিতে চাষ করা হয়েছে। অপরদিকে কিছু এলাকায় ক্যারেন্ট পোকার আক্রমনে এই জামাই সোহাগা ধানের বিপর্যের সম্ভাবনাও রয়েছে এমন অভিযোগ চাষীদের। কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবীদ অরুন চন্দ রায় এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ক্যারেন্ট পোকার আক্রমন থেকে রেহায় পাওয়ার জন্য প্রতিটি ইউনিয়নে সহকারী কৃষি অফিসারগণ প্রতিটি চাষীদের সাথে পরামর্শ মূলক ব্যবস্থাপনা নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। এবার সুগন্ধি জামাই সোহাগা চিকন আতব ধানের দাম ভালো পেলে কৃষকেরা ঋণের বোঝা মুক্ত হবে এমন অভিমত চাষীদের। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close