মহানগরশিরোনাম-২

অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে -বাদশা

নিজস্ব প্রতিবেদক:বৃহস্পতিবার দুপুরে শহীদ জামিল আখতার রতনের সমাধীস্থলে বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রী রাজশাহী জেলা মহানগর শোক র‌্যালি ও সমাবেশ আয়োজন করে।

শোকযাত্রা শেষে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে  উপস্থিত ছিলেন, ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রফিকুল ইসলাম পিয়ারুল, মহানগর পার্টি সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু, জেলা ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আশরাফুল হক তোতা, ছাত্রমৈত্রীর জেলা আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম, যুগ্ন আহ্বায়ক হাফিজুর রহমান, নগর সহ-সভাপতি আরাফাত হোসেন মারুফ, ফারহান তানভীর হিমেল, সহ-সাধারণ সম্পাদক চঞ্চল, ওহিদুর রহমান ওহি প্রমুখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন নগর সাধারণ সম্পাদক সম্রাট রায়হান।

বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রীর রাজশাহী মহানগর সভাপতি এ.এইচ.এম জুয়েল খানের সভাপতিত্বে ,বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রীর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও ওয়ার্কার্স পার্টিও সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বলেন,জামায়াত-শিবির ও নরঘাতক যুদ্ধাপরাধী মৌলবাদী চক্রের সকল ষড়যন্ত্রের বেড়াজাল ছিন্ন করে বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি বলেন, অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র শহীদ ডা. জামিল আখতার রতনের আদর্শ। আর অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে ছাত্রমৈত্রীর নেতৃবৃন্দকে। তাহলেই জামিল আখতার রতনের রক্ত দেয়া বৃথা যাবেনা। এদেশের কোটি কোটি মানুষ এখনো বঞ্চিত-শোষিত, যতদিন তারা শোষণ ও বঞ্চনা থেকে মুক্তি না পাবে ততদিন আমরা শোষণমুক্তির সংগ্রাম চালিয়ে যাবার শপথ নিতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, যে লাল-সবুজের পতাকা আনতে গিয়ে এদেশের ৩০ লক্ষ মানুষ জীবন দিয়েছেন; প্রয়োজনে রক্ত দিয়ে হলেও তা ঊর্ধ্বে তুলে রাখবো। আমরা লড়াই করেছি জামিলের হত্যাকারী জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে। আমরা লড়াই করেছি ৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে যারা ৩০ লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছিল তাদের বিরুদ্ধে। এই লড়াই করেই তাদের বিচারের কাঠ গড়ায় দাঁড় করাতে পেরেছি। নরঘাতক যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি হচ্ছে। তিনি অন্যান্য সকল যুদ্ধাপরাধীর বিচারের রায় অবিলম্বে কার্যকর করার দাবি জানান। বরেন্দ্রবার্তা/অপস

 

Close