চারঘাটশিক্ষাঙ্গন বার্তাশিরোনাম-২

চারঘাটে দিনের প্রথম ভাগেই কলেজ ছুটি!

নিজস্ব প্রতিবেদক,চারঘাট: স্কুল কলেজে পাঠদানের সরকারি সময় সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা। কিন্তু রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার বিভিন্ন কলেজ দিনের প্রথম ভাগেই ছুটি হয়ে যায়।এসব কলেজ গুলোর মধ্যে চারঘাট উপজেলা সদরে অবস্থিত আলহাজ্ব এম, এ, হাদী কলেজ অন্যতম।
আলহাজ্ব এম, এ, হাদী কলেজের শিক্ষকদের অধিকাংশই সকালে এসে হাজিরা দিয়ে নিজ নিজ কাজে চলে যান। কেউ প্রাইভেট বা কোচিং সেন্টারে পড়াচ্ছেন, কেউ ব্যবসা বাণিজ্যে মনোযোগী হচ্ছেন। ফলে ব্যাহত হচ্ছে পাঠদান কার্যক্রম।এ কারনে ক্রমাগত কমছে এ কলেজের শিক্ষার্থীদের সংখ্যা।
অভিভাবক সূত্রে জানা যায়,ঐ প্রতিষ্ঠানের একশ্রেণীর শিক্ষকদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত থাকা ও নিয়ম মতো পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনায় ব্যাপক অনীহা রয়েছে।পাঠদানে ফাঁকিবাজি ও অনিয়ম দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকলেও অধ্যক্ষ এবং শিক্ষা অফিসগুলোর মনিটরিং ও তত্ত্বাবধান না থাকার কারনে প্রতিনিয়ত সেটা বাড়ছে।ঠিকমত ক্লাস পরিচালনা না হওয়ায় ছাত্র-ছাত্রীর অভিভাবকরাও চিন্তিত হয়ে পড়েছেন।
জানা গেছে, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ রাজশাহী বিভাগের আওতাধীন দুই হাজার ৯৮৮টি স্কুল ও ৭৬০টি কলেজপ্রধানকে ৪ নভেম্বর জরুরি সতর্কতামূলক একটি চিঠি দিয়েছেন। এই চিঠির অনুলিপি শিক্ষা মন্ত্রণালয়, মাউশির ডিজি, রাজশাহীর বিভাগীয় কমিশনারসহ সব জেলা প্রশাসক ও জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারদের দেয়া হয়েছে। চিঠিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত সময় সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এই নিয়মের ব্যতিক্রম করে নির্ধারিত সময়ের আগে বন্ধ করা হলে তাদের বিরুদ্ধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দেয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে।
নির্দিষ্ট সময়ের আগেই কলেজ ছুটি হয়ে যাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে চারঘাট আলহাজ্ব এম,এ,হাদী কলেজের অধ্যক্ষ সাহাজ উদ্দীন বলেন,আমাদের কলেজ টাইম ৩টা পর্যন্ত। তবে রুটিনে ২টা পর্যন্ত ক্লাস রাখা হয়েছে।আর শিক্ষকদের ক্লাস না থাকলে তারা ব্যাক্তিগত কাজে বাইরে যেতেই পারে।
চারঘাট উপজেলার কলেজ গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে চারঘাট উপজেলা পুলিশিং কমিটির সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম বাদশা বলেন,শিক্ষকদের অলসতা ও গাফলতির কারনে উপজেলার কলেজ গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম স্থবির হয়ে গেছে।কলেজের অধ্যক্ষের অদক্ষতা ও মনিটরিং না থাকার কারনেই এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে চারঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ নাজমুল হক বলেন,এমপিও ভুক্ত প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে সরকারী নিয়ম মেনেই প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতে হবে।কোনো কলেজ যদি সরকারী নিয়ম না মানে তবে অবশ্যই আমরা সেসকল কলেজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবো। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close