অর্থ ও বাণিজ্যতানোরপবামহানগরশিরোনাম

রাজশাহীতে ছড়িয়ে পড়ছে অনুমোদনহীন এসটিসি ব্যাংকের শাখা

ষ্টাফ রির্পোট: রাজশাহীতে অবৈধভাবে ব্যাংকিং কার্যক্রম চালাচ্ছে স্মল ট্রেডার্স কো-অপারেটিভ (এসটিসি) ব্যাংক লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। নারায়ণগঞ্জ জেলায় কাজ করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়াই সমবায় অধিদফতর থেকে অনুমোদন নিয়ে সমবায় সমিতি হিসেবে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে এটি। একই সঙ্গে রাজশাহীতেও কয়েকটি শাখা খুলে বসেছে এ প্রতিষ্ঠানটি।
ব্যাংক পরিচয়ে অবাধে ব্যাংকের মতোই নগরীতে বিভাগীয় কার্যালয় খুলে এবং উপজেলা পর্যায়েও শাখা খুলে অবৈধভাবে আর্থিক কার্যক্রম চালাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।
ব্যাংক কোম্পানি আইন ও সমবায় আইন অনুযায়ী, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যাংক হিসাবে লাইসেন্স পাওয়া প্রতিষ্ঠানের বাইরে কোনো প্রতিষ্ঠান সাধারণ মানুষ থেকে আমানত নিতে পারে না। কিন্তু ব্যাংকের মতোই এ প্রতিষ্ঠানটি আমানত সংগ্রহ থেকে শুরু করে ঋণ প্রদান ও আদায় করে চলেছে। ফলে অনুমোদনহীন ব্যাংকিং কার্যক্রম চালানো প্রতিষ্ঠানটি এক সময় ‘হায় হায়’ কোম্পানিতে রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজশাহী মহানগরীর বর্নালী মোড়ে মরিয়ম আলী টাওয়ারের চতুর্থ তলায় চলতি বছরের মে মাস থেকে ব্যাংকটির আঞ্চলিক শাখা অফিস খুলে ইসলামী শরিয়াহ ভিত্তিক পরিচালনার কথা বলে সঞ্চয়, ডিপিএস ও চলতি হিসাবসহ সব ধরনের ব্যাংকিং কার্যক্রম চালু করে এসটিসি। তবে নাম ব্যাংক আর অনুমোদন সমবায় অধিদফতর হওয়ার খবরে শাখাটি চালু হওয়ার পর থেকেই স্থানীয়দের মাঝে এ নিয়ে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
এর বাইরে নগরীর সাগরপাড়ায় এসটিসি ব্যাংক লিমিটেডের রাজশাহী শাখা ও বিভাগীয় কার্যালয়, পবা থানার পাশে নওহাটা শাখা অফিস, বানেশ্বর ফাতেমা হক প্লাজায় (৩য় তলায়) বানেশ্বর শাখা অফিস, মোহনপুরের কেশরহাটে একটি শাখা অফিস, তানোর পৌরশহরের চেয়ারম্যান প্লাজার দ্বিতীয় তলায় তানোর শাখা অফিস, বাগমারার ভবানীগঞ্জ বাজারের গোডাউন মোড়ে ভবানীগঞ্জ শাখা অফিসসহ রাজশাহী জেলার বিভিন্ন জেলা উপজেলায় অবাধে ব্যাংকের মতোই শাখা প্রশাখা খুলে অবৈধ কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।
অনুসন্ধানে জানা যায়, এসটিসি ব্যাংক সমবায় অধিদফতর থেকে সমবায় সমিতি হিসেবে শুধুমাত্র নারায়ণগঞ্জ জেলায় কাজ করার অনুমতি নিয়েছে। সংশোধিত উপ-আইন অনুযায়ী কর্ম এলাকার বাইরে কার্যক্রম পরিচালনা করা সমবায় সমিতি বিধিমালা ২০০৪ এর ১২(২) এর পরিপন্থী। এছাড়া সমবায় আইন ২০০১, সংশোধিত ২০০২ ও ২০১৩ এর ২৩(১) ধারা অনুযায়ী কোনো সমবায় সমিতি তার কার্যক্রম পরিচালনার জন্য শাখা অফিস খুলতে পারবে না এবং সমবায় সমিতি আইনের ২৬ ধারা অনুযায়ী সদস্য ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে আমানত গ্রহণ বা ঋণ প্রদান করতে পারবে না। কিন্তু এ নিয়ম-নীতি তোয়াক্কা না করেও সমবায় সমিতির নামের সঙ্গে ‘ব্যাংক’ শব্দটি ব্যবহার করে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।
এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মামুনুল হক বলেন, ‘স্মল ট্রেডার্স কো-অপারেটিভ (এসটিসি) ব্যাংক লিমিটেড নামে কোনো ব্যাংক অনুমোদন দেওয়া হয়নি। তারা কীভাবে কার্যক্রম চালাচ্ছে সেটি খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।’
এদিকে, নগরীর সাগরপাড়ায় এসটিসির বিভাগীয় কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক ও রাজশাহী বিভাগীয় প্রধান আজিমুদ্দীন প্রামাণিক জানান, বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন সংক্রান্ত কোনো কাগজপত্র তাদের কাছে নেই। তবে তাদের কাছে নারায়ণগঞ্জে শাখা খোলার অনুমতিপত্র আছে।
তিনি বলেন, ‘দেশব্যাপী শাখা খোলার স্থায়ী অনুমতি চেয়ে গত ২২ সেপ্টেম্বর উচ্চ আদালতে রিট করা হয়েছে। রিটের রায় আমাদের পক্ষে আসবে আশা করি। তাই শাখা খুলে ব্যবসা করা হচ্ছে। আমরা কখনোই ‘হায় হায়’ কোম্পানিতে পরিণত হব না।’বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close