খেলামহানগরশিরোনাম

বিপিএল চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী রয়্যালস, বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস নগরবাসীর

ষ্টাফ রির্পোট : বঙ্গবন্ধু বিপিএলের চ্যাম্পিয়ন শিরোপা জিতলো রাজশাহী রয়্যালস। খুলনা টাইগার্সকে হারিয়ে শিরোপা জিতলো রাজশাহী রয়্যালস। আন্দ্রে রাসেলের কাছে হেরে প্রথমবারের মতো বিপিএল জয়ের স্বপ্ন ভঙ্গ হলো মিস্টার ডিপেন্ডেবল মুশফিকুর রহিমের। ফাইনালে ২১ রানে হারলো খুলনা।
১৭১ রানের বিশাল লক্ষ তাড়া করতে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনারকে হারিয়ে বসে খুলনা। এরপর শামসুর রহমান এবং রাইলি রুশো দলকে এগিয়ে নিলেও রুশোর বিদায়ের পর আবারো চাপে পড়ে খুলনা। মুশফিকে ক্রিজে রেখে শামসুর রহমান যখন ফিরে যান তখন দল তখন কঠিন সমীকরণে। তবে আজ আর অতিমানবীয় কিছু করে দেখা পারেননি মুশি। তাকে সেটা করতে দেননি রাজশাহী অধিনায়ক আন্দ্রে রাসেল। ১৮তম ওভারে মুশফিককে বোল্ড করে শিরোপার রাস্তার অনেকটাই পরিস্কার করে ফেলেন রাসেল। এক ওভার বিরতী দিয়ে শেষ ওভারে আবারো আগুন ঝরা বোলিংয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন রাসেল।
এর আগে খুলনা টাইগার্সের বিপক্ষে লড়াইয়ের পুঁজি পায় রাজশাহী রয়্যালস। টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৭০ রান তোলে তারা।
শুরুতে থেকে রানের গতিতে লাগাম দিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছিলেন খুলনার বোলাররা। লিটন দাস, আফিফ হোসেনরা সুবিধা করতে পারেননি। শোয়েব মালিকও ফেরেন দ্রুতই। তবে একপাশ আগলে রান তুলে যান ইরফান শুক্কুর। তার ৫২ রানের ইনিংসটি রানের গতি ধরে রাখে। আর শেষ দিকে অধিনায়ক আন্দ্রে রাসেলের সঙ্গে ঝড় তোলেন মোহাম্মদ নওয়াজ।
স্কোর :
রাজশাহী রয়্যালস ১৭০/৪ (২০), লিটন দাস ২৫ (২৮), আফিফ হোসেন ১০ (৮), ইরফান শুক্কুর ৫২ (৩৫), শোয়েব মালিক ৯ (১৩), আন্দ্রে রাসেল ২৭* (১৬), মোহাম্মদ নওয়াজ ৩৭* (১৯)।
বোলার : মোহাম্মদ আমির ৪-০-৩১-২, রবি ফ্রাইলিঙ্ক ৪-০-৩৩-১, তানভীর ইসলাম ১-০-১১-০, শফিউল ইসলাম ৪-০-৩৮-০, মেহেদী হাসান মিরাজ ৩-০-২৭-০, শহিদুল ইসলাম ৪-০-২৩-১।
খুলনা টাইগার্স : নাজমুল হোসেন শান্ত ০ (২), মেহেদী হাসান মিরাজ ২ (৪), শামসুর রহমান ৫২ (৪৩), রাইলি রুশো ৩৭ (২৬), মুশফিকুর রহিম ২১ (১৫), নাজিবুল্লাহ জাদরান ৪ (৪), রবি ফ্রাইলিঙ্ক ১২ (১৫), শহিদুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম।
বোলার : মোহাম্মদ ইরফান ৪-১-১৮-২, আবু জায়েদ ২-০-২৪-১, আন্দ্রে রাসেল, শোয়েব মালিক ২-০-১৫-০, মোহাম্মদ নওয়াজ ৪-০-২৯-১, কামরুল ইসরাম রাব্বি ৪-০-২৯-২।
এদিকে জয়ের আগেই শুরু হয় আতশবাজি। বিভিন্ন এলাকা ও পাড়া-মহল্লায় পটকা ফাটিয়ে ও বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে ক্রিকেটপ্রেমী তরুণ প্রজন্ম। শেষ ওভারের যেন প্রতিটি বলেই ‘হুঁই’ করে চেঁচিয়ে ওঠে সবাই। নিশ্চিত জয় জেনে বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র নিয়ে রাস্তায় নেমে পড়ে সবাই।
অন্যদিতে রাজশাহী রয়্যালস দলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। শুক্রবার রাতে এক অভিনন্দন বার্তায় মেয়র এই অভিনন্দন জানান।
অভিনন্দন বার্তায় মেয়র বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এবারের বিশেষ বিপিএলে রাজশাহী রয়্যালস চ্যাম্পিয়ন হয়েছে, এটি রাজশাহীবাসীর জন্য অত্যন্ত আনন্দ ও গৌরবের। রাজশাহী রয়্যালস বঙ্গবন্ধু বিপিএল এর পুরো আসরজুড়েই দারুণ নৈপুণ্য দেখিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপা জেতায় দলটির সকল খেলোয়াড়সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। একই সাথে রাজশাহীর অগণিত ক্রিকেটভক্তসহ সকলকে জানাই শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। রাজশাহী রয়্যালস আগামীতেও বিজয়ের ধারাবাহিকতা অব্যহত রাখবে বলে আশা করি।
রাজশাহী রয়্যালসের অগণিত সমর্থক খণ্ড-খণ্ড মিছিল নিয়ে শহরের শহীদ কামারুজ্জামান চত্বর, নিউমার্কেট, রাণীবাজার, গণকপাড়া হয়ে সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে গিয়ে মূল আনন্দ মিছিলে যুক্ত হয়। বিজয় মিছিলটি এখান থেকে শুরু হয়ে কুমারপাড়া ও আলুপট্টি স্বাধীনতা চত্বরসহ বিভিন্ন প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
জয়ের পরপরই রাজশাহী রাজপথে শুরু হয় বিজয় উল্লাস, মোড়ে মোড়ে সাধারণ মানুষ নেমে আসে বিভিন্নভাবে তারা আনন্দ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে। এ সময় রাজশাহী রয়্যালস, রাজশাহী রয়্যালস ধ্বনিতে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে আশপাশের এলাকা। সমর্থকরা ঢোল, ড্রাম, বাঁশি বাজিয়ে রাজশাহী রয়্যালসকে অভিনন্দন জানান। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে রাজশাহী নতুন ইতিহাস তৈরি হলো বলে মন্তব্য করেন অনেকে। দীর্ঘ দিন ধরে রাজশাহীর ক্রিকেট সমর্থকরা যেনো এমন একটি মুহূর্তের জন্যই অপেক্ষার প্রহর গুন ছিলেন।
বিজয়ের আনন্দে যে কতটা মাততে পারে, আর কতভাবেই যে সেই আনন্দের বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে পারে আজ আরও একবার তার প্রমাণ দেয় রাজশাহী শহরের ক্রিকেটপাগল দর্শকরা। উচ্ছ্বাসিত জনতার স্রোত ছড়িয়ে পড়ে মহানগরীর কদিরগঞ্জ গ্রেটাররোড, শালবাগান, উপশহর ও শিরোইল বাস টার্মিনাল এলাকায়ও।
শেষ পর্যন্ত খুলনার স্বপ্ন ভঙ্গ করে রেকর্ড জয়ের মধ্যে দিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপা ঘরে তুলতে সক্ষম হলো রাজশাহী। এজন্য সবার মুখেই ছিল একই স্লোগান, রাজশাহী- রাজশাহী! দলমত ভুলে খুশির জোয়ারে গা ভাসায় সবাই। এমন এক রেকর্ড জয়ে উল্লাসে ফেটে পড়েন রাজশাহীর ক্রিকেট ভক্তরা। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close