মহানগরশিরোনাম

রাজশাহীতে হঠাৎ বৃষ্টি, বিড়ম্বনায় অফিস ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: সদ্য কয়েকদিন হলো শুরু হয়েছে মাঘ মাস। এমনিতে রাজশাহীতে পুরো মৌসুম শীতের দাপটে মানুষ দিশেহারা। কয়েকদনি ধরে তাপমাত্র সামান্য বেড়েছিল। দিনের বেলা রোদের ঝলকানীতে বসন্তের আগমনকে জানান দিচ্ছিল। কিন্তু রোববারসকাল পৌনে ১০টা থেকে টিপ টিপ এবং সোয়া ১০টার পরে থেকে টানা ১ঘন্টা বৃষ্টি শুরু হয় রাজশাহীতে। কথায় আছে মাঘের শেষে বৃষ্টি হলে ফসলের উপকার হয় ও দেশের কল্যাণ হয়। তবে কৃষি বিভাগ বলছে শুরুর বৃষ্টিতে ফসলের ক্ষতি হবে না।
এদিকে, টানা শৈত্যপ্রবাহ শেষে রাজশাহীর তাপমাত্রা প্রতিদিনই বাড়ছে। সর্বশেষ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এক অঙ্কের ঘরে ছিল গত ১৫ জানুয়ারি। ঐদিন রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপর থেকে প্রতিদিনই তাপমাত্রা একটু একটু করে বাড়ছে। গতকাল রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে সকাল থেকে কুয়াশা ও মেঘের কারণে রাজশাহীতে সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। তবে দুপুর পর থেকে সামান্য রোদের দেখা পায় রাজশাহী বাসি। মূলত বৃষ্টির কারণেই এদিন শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে উত্তরেরএ জনপদে। বৃষ্টির কারণে সাপ্তাহিক ছুটি শেষে প্রথম কর্মদিবসে ঘরে থেকে বেরিয়েই দুর্ভোগে পড়েন কর্মজীবী মানুষ ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা।
সকালে যাদের স্কুল ছুটি হয়, তাদের দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে বেশি। ছুটি শেষে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরতে গিয়ে ছোট্ট শিশু ও তাদের অভিভাবকরা ভিজেছেন শীতের বৃষ্টিতে। বৃষ্টির কারণে সড়কে রিকশা চলাচল হঠাৎ করেই কমে আসে। বৃষ্টির পানিতে মহানগরীর শালবাগান, নিউমার্কেট, লক্ষ্মীপুর, কোর্ট বাজার ও মাস্টারপাড়ার কাঁচা বাজার কর্দমাক্ত হয়ে পড়ে। এছাড়াও সিটি বাইপাসসহ গলির রাস্তাগুলো কাদাতে ভরে যায়। তবে বৃষ্টি থামা এবং রোদ হওয়ার কারনে বিকেল থেকে মানুষ একটু স্বস্তিতে চলাফেরা করতে পারেন।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক আনোয়ারা বেগম বলেন, রোববার সকাল ১০টা ২৫ মিনিট থেকে রাজশাহীতে বৃষ্টি শুরু হয়। একপশলা বৃষ্টিতে ভিজে পুরো শহর। এ সময় রাজশাহীতে ২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। বেলা ১১টার পর আর বৃষ্টি হয়নি। রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক (ডিডি) শামসুল আলম বলেন, মাঘের শেষে বৃষ্টি বরাবরই কৃষিজাত ফসলের জন্য আশির্বাদ। তবে কেবলমাত্র মাঘ মাস শুরু হয়েছে। এ সময় রাজশাহীসহ বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি হচ্ছে। এটিও খারাপ বা ক্ষতিকর নয় ফসলের জন্য। আরও ১-২ দিন এমন বৃষ্টি হলেও ফসলের কোনো ক্ষতি হবে না। বরেন্দ্র বার্তা/ফকবা/অপস

Close