চাঁপাই নবাবগঞ্জজয়পুরহাটজাতীয়নওগাঁনাটোরপাবনাবগুড়ামহানগরশিরোনামসিরাজগঞ্জ

রাজশাহী বিভাগে মুক্তিযোদ্ধার নতুন স্বীকৃতি পাচ্ছেন ১৯৯ জন

বরেন্দ্র বার্তা ডেস্ক: দুই বছর ধরে কয়েক দফা যাচাই-বাছাই শেষে সারা দেশের এক হাজার ৩৭৯ জন মুক্তিযোদ্ধাকে নতুন করে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দিতে যাচ্ছে সরকার। এরমধ্যে ঢাকা বিভাগে ৪৫১, চট্টগ্রামে ৩২৪, রাজশাহীতে ১৯৯, ময়মনসিংহে ৫৬, সিলেটে ১৭৯ ও রংপুর বিভাগে ১০৬ জন। এরা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হলেও এতদিন তাদের নাম গেজেটভুক্ত হয়নি। তাদের নামে ইস্যু করা হয়নি সনদ। ফলে তারা সরকারি কোনো সুযোগ-সুবিধা পাননি। উপজেলা পর্যায়ে যাচাই-বাছাই কমিটির সুপারিশের পর এবার তাদের নাম গেজেটভুক্তির সুপারিশ করেছে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা)। ১০ ডিসেম্বর জামুকার ৬৬তম বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। শিগগিরই এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এখন পর্যন্ত খুলনা ও বরিশাল বিভাগের তালিকা চূড়ান্ত হয়নি। এসংক্রান্ত কাজ শেষ হলেই দুই বিভাগের নাম প্রকাশ করা হবে। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।
এ প্রসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী ও জামুকার চেয়ারম্যান আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘উপজেলা কমিটির যাচাই-বাছাই শেষে জামুকার সুপারিশের ভিত্তিতে প্রথম দফায় এক হাজার ৩৭৯ জনকে মুক্তিযোদ্ধার গেজেট করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। শিগগিরই এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। এরপরই তা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।’
জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেটভুক্তির জন্য ২০১৪ সালের অক্টোবর পর্যন্ত অনলাইনে এক লাখ ২৩ হাজার ১৫৪ জন এবং সরাসরি ১০ হাজার ৯০০ জন আবেদন করেছিলেন জামুকায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে সারা দেশের ৪৭০টি উপজেলা/জেলা/মহানগর কমিটি গঠন করে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই শুরু হয়। ৪৭০টি কমিটির মধ্যে ৩৮৫টি তাদের প্রতিবেদন জমা দিলেও, সদস্যদের দ্বন্দ্ব এবং আদালতে মামলা থাকায় ৮৫টি কমিটি কাজ করতে পারেনি। উপজেলা কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে ফের জামুকায় অধিকতর যাচাই-বাছাই করতে প্রতি বিভাগে উপকমিটি করা হয়। এ উপকমিটির সুপারিশের আলোকে প্রথম দফায় এক হাজার ৩৭৯ জনকে গেজেটভুক্ত করার সুপারিশ করেছে জামুকা। অবশ্য সুপারিশপ্রাপ্তদের অনেকে ইতিমধ্যে মারা গেছেন। তবে মন্ত্রণালয় বলছে, স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ব্যক্তির অবর্তমানে তাদের পরিবারের সদস্যরাও মুক্তিযোদ্ধা ভাতাসহ সব সুযোগ-সুবিধা প্রাপ্য হবেন।
রাজশাহী বিভাগে যারা স্বীকৃতি পাচ্ছেন তারা হলেন:
রাজশাহী : জয়পুরহাট উপজেলার মো. হাবিবুর রহমান, মৃত মোহা. আব্দুল মান্নান, মৃত তসলিম উদ্দীন আনছারী, মো. লুৎফর রহমান, মো. আসাদুর রহমান, মো. আজিবর রহমান। ক্ষেতলাল উপজেলার পরিমল চন্দ্র বর্মন। আক্কেলপুর উপজেলার মো. আশরাফুল ইসলাম, মো. আজিজুল হক, মো. মোজাম্মেল হক, একেএম ওয়াহেদ, মো. আনিছুর রহমান, মো. খায়রুল ইসলাম, মৃত আকরাম হোসেন, মো. আত্তাফ উদ্দীন আহম্মেদ, মো. আজিজার রহমান, মো. শাহ আলম তালুকদার। পাঁচবিবি উপজেলার মো. আলতাফ হোসেন, মো. আবুল হোসেন, আব্দুর রউফ আকন্দ, শ্রী বানো পাহান, মৃত আ. সামাদ, মো. সফিজ উদ্দিন মন্ডল, শ্রী বিরেন্দ্র নাথ সরকার, মৃত বিশ্বনাথ।
রাজশাহী : তানোর উপজেলার মো. হারুন অর রশিদ। পুঠিয়া উপজেলার কেএম আব্দুর রহিম, মো. মাজদার রহমান।
নওগাঁ : ধামইরহাট উপজেলার মৃত জামাল উদ্দিন, মি. মাথাই টুডু, মো. রইচ উদ্দিন, মো. মোকারম হোসেন আহমদ, মৃত আ. রহমান, মৃত আ. সোবহান সরকার।
নাটোর : বাগাতিপাড়া উপজেলার মো. সোলাইমান আলী, মো. আব্দুল রাজ্জাক খান, মৃত মোতাহার হোসেন। বড়াইগ্রাম উপজেলার বীরেন্দ্র নাথ রায়। লালপুর উপজেলার মো. সাহাব উদ্দীন, মো. আবুল কালাম, মো. আমজাদ হোসেন, শহিদ মজিবর রহমান, মো. সাবান বিশ্বাস, মৃত জমসেদ আলী প্রামাণিক, মরহুম রোস্তুম আলী সরকার, মৃত জাহাঙ্গীর আলম, মৃত পিয়ার উদ্দিন। নাটোর সদর উপজেলার মৃত অমরেন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য, মো. ফজলুর রহমান, মো. ভাদু মন্ডল, মৃত আফসার ফকির, ইব্রাহিম প্রাং, মো. কামরুল ইসলাম, আশরাফুল আলম, সুলতান আহম্মেদ, মৃত মকবুল হোসেন, মো. আমজাদ হোসেন, মো. শরিয়ত উল্লাহ, মো. মজিবর রহমান সেন্টু, মৃত রফিক উদ্দিন সরকার, অঞ্জলী রানী সরকার, মৃত মফিজ উদ্দিন, শেখর দত্ত, মৃত শাহ নজরুল, মৃত আরশেদ আলী মন্ডল।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ : ভোলাহাট উপজেলার মো. কোহিনুর আলম, মো. সামসুদ্দীন, মো. সাহাবুদ্দীন, মো. আলী ইমাম, মৃত মোজাম্মেল হক, মো. নুরুল ইসলাম। গোমস্তাপুর উপজেলার মো. মোজাহারুল ইসলাম, মৃত শুকুর উরাও, মো. জার্জিস আলম, মো. আব্দুস সাত্তার, মো. মকবুল হোসেন। শিবগঞ্জ উপজেলার মৃত তোবারক হোসেন, মোহাম্মদ আজিজ উদদৌলা, মোহা. মোশাররফ হোসেন, মো. জালাল উদ্দীন, মো. আব্দুল হক, মো. রবিউল হক, আবু মো. সাইফুল ইসলাম রেজা, জিএমকে আকতারুল ইসলাম, মৃত কুলবান আলী, মৃত নেশার উদ্দিন, মো. জালাল উদ্দিন, মো. সোনার উদ্দিন, মো. হাবিবুর রহমান, মো. সাহাবুল হক, মো. ফজলুর রহমান, মো. সোহবুল আলম, মৃত আফসার হোসেন, মো. গোলাম মোস্তাক, মো. আজিজুর রহমান, মো. মোজাম্মেল হক, মো. রেজাউল করিম, মৃত আফসার আলী, মো. বানারুদ্দিন, মো. আফসার আলী।
সিরাজগঞ্জ : সদর উপজেলার মো. কুদরত আলী, মৃত গোলাম ছরোয়ার, মৃত লিয়াকত আলী, মোহাম্মদ হুজ্জাতুল ইসলাম, মো. ইউসুফ আলী মিয়া, মৃত জামাল উদ্দিন মণ্ডল, মো. আকতার হোসেন, মো. জহিরুল ইসলাম সরকার, এমকে বুলবুল হাসান, মো. আবদুস ছামাদ সরকার, মৃত আবদুল কুদ্দুস খান, মীর ফজলুল হোসেন, মৃত গোলাম সরোয়ার তালুকদার, মো. আবদুল খালেক শেখ, মৃত সৈয়দা ইসাবেলা, মো. আবু বকর সিদ্দিক, শ্রী শচীন্দ্র নাথ চক্রবর্তী, মৃত নুরুল ইসলাম তালুকদার, মো. ইব্রাহিম হোসেন, অধ্যাপক ডা. আবদুস সোবহান, মৃত আবদুল কাদের, মো. সামছুল হক তালুকদার, মো. আবদুল মজিদ সেখ, মো. আলতাফ হোসেন, মৃত আনোয়ার হোসেন (তারা), মৃত শাহজাহান আলী, মো. আবুল কাশেম সেখ, মো. মাহমুদ হাসান ভুঁইয়া, মৃত দলিলুর রহমান তাং, মো. লুৎফর রহমান, মো. আবদুল লতিফ। শাহজাদপুর উপজেলার মো. মাসুদুল ইসলাম খান লোদী, মো. আবুল কাশেম মিয়া, মো. আবদুল রউফ মিয়া, মো. নুর ইসলাম, মৃত আবুল হোসেন, মো. সাইফ উদ্দিন, মো. ফজলুল বারি, মো. ফজলুল হক, মো. আবদুল কুদ্দুস আনছারী, হাজী মো. রহম আলী, গাজী মো. হযরত আলী, কামারখন্দ উপজেলার মো. আবদুস ছাত্তার, মো. আবদুর করিম খান, মো. জিন্নাহ মিয়া, একেএম মোরশেদ, আবদুল ওয়াহাব।
বগুড়া : মৃত উদয় চন্দ্র সিংহ, শ্রী অতুল চন্দ্র রায়, মৃত আমজাদ হোসেন, মো. আবদুল বারী, মো. আকরাম হোসেন প্রাং, মো. আবুল কালাম আজাদ, মো. সিরাজুল হক, মৃত মীর হোসেন। দুপচাঁচিয়া উপজেলার মো. আবদুল করিম, মো. খয়বর আলী, মো. সেকেন্দার আলী, মো. ইমদাদুল হক, মৃত ভবেশ চন্দ্র দাস, মৃত ফজলুর রহমান। ধুনট উপজেলার মৃত আজিজুর রহমান, মো. আজমল হোসেন, মৃত আবদুল খালেক সরদার, মো. রেজাউল করিম, আবদুল কাদির, মৃত রফিকুল ইসলাম সরকার (আউয়াল), মো. রেজাউন নবী, মৃত খোরশেদ আলম। শেরপুর উপজেলার শহীদ কফিল উদ্দিন। কাহালু উপজেলার প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস, মো. আকবর আলী সরকার। শিবগঞ্জ উপজেলার মৃত রফিকুল ইসলাম, মো. সিরাজুল ইসলাম (হান্না), মো. আবদুল জলিল তালুকদার। সোনাতলা উপজেলার মো. আজমত আলী, মৃত সাহাব উদ্দিন, মো. খায়রুজ্জামান, মো. মোজাম্মেল হক, মো. তমিজ উদ্দিন প্রামাণিক, মো. ছবদার রহমান, মো. আবুল হোসেন, মো. নাজির উদ্দীন, মো. সিরাজুল ইসলাম, মো. আ. গফুর মণ্ডল, মো. আজিজুর রহমান, মো. ওয়াজেদ আলী, মো. আবদুর রহমান, মো. কামরুজ্জামান, মো. আবদুল হাই, মো. জাকিউল হাসান (সানু মিয়া), মো. আমজাদ হোসেন, মো. ফজলুল হক, এটিএম ইউনুছ আলী, মৃত জহুরুল ইসলাম সরকার। সারিয়াকান্দি উপজেলার মো. আফতার হোসেন, মো. লোকমান হোসেন, মো. রফিকুল ইসলাম, মৃত আবুল কামাল আজাদ। বরেন্দ্র বার্তা/অপস

Close