বাগমারাশিরোনাম-২

বাগমারায় শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার মামলায় আসামী গ্রেফতার

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাগমারায় নজরুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি বিরুদ্ধে ১২ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় শিশুটি দাদী আয়েশা বেওয়া বাদী হয়ে বাগমারা থানায় একটি মামলা ধর্ষণ চেষ্টায় মামলা দায়ের করে। পরে মামলায় লম্পট নজরুল ইসলামকে আজ বৃহস্পতিবার মুগাইপাড়া বাজার থেকে গ্রেফতার করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই কামরুজ্জামান। আটকের পরে নজরুল ইসলামকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণা করা হয়েছে। মামলা ষূত্রে জানাগেছে, গত মঙ্গলবার বিকেল ৫ টার দিকে পান কুড়ানোর কথা বলে সুকৌশলে পান বরজে ওই শিশুকে ডাকেন মুগাইপাড়া গ্রামের মৃত মঙ্গল সরদারের বখাটে ছেলে নজরুল ইসলাম।

সম্পর্কে সে পাড়াপ্রতিবেশী চাচা। নিজের কু-বাসনা চরিতার্থ করতে নিজের পান বরজে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় শিশুটির উপর। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার আউচপাড়া ইউনিয়নের মুগাইপাড়া গ্রামে। পান বরজ থেকে ঝরে পড়া পান কুড়িয়ে বিক্রয় করার কথা বলে সেখানে নিয়ে যায় ওই শিশুটিকে। শিশুটির সাংসারিক অবস্থা ভালো না হওয়ায় সেখানে যায় পান কুড়াতে। চাচার কথায় পান কুড়াতে বরজে গেলে কুবাসনা পূর্ণ করার লক্ষ্যে পান বরজে তাকে বিবস্ত্র করে নজরুল ইসলাম। এক পর্যায়ে নজরুল ধর্ষণের চেষ্টা করলে চিৎকার দেয় শিশুটি। শিশুটির আত্মচিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে পারিয়ে যায় লম্পট নজরুল ইসলাম। পরে লোকজন শিশুটিকে সেখান থেকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়। ঘটনাটি তৎক্ষনাত এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে।

ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে একটি পক্ষ। অপরদিকে শিশুটি যেন মুখ না খুলে সে জন্য ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বখাটে নজরুল ইসলাম। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ভাবে একটি বৈঠক হলেও সেই বৈঠকে কোন কাজ দেইনি। পরে বুধবার স্থানীয় ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সিরাজ উদ্দীন কবিরাজের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করে ধর্ষণ চেষ্টার শিকার ওই শিশু। শিশুটির করা অভিযোগের ভিত্তিতে ইউপি সদস্য সিরাজ উদ্দীন কবিরাজ স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানে একটি বৈঠক বসানোর উদ্যোগ নেন। সেখানে শিশুটির ভবিষ্যতের কথা ভেবে একটা মোটা অংকের অর্থ নিয়ে শিশুটিকে দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হয়। এরই একপর্যায়ে ঘটনাস্থলে
হাজির হয় বাগমারা থানার পুলিশ। পুলিশ যেন ঘটনার কিছুই না জানতে পারে সে জন্য গোপনে বৈঠকটি ডেকেছিলেন ইউপি সদস্য। পরে শিশুটিকে উদ্ধার করে বাগমারা থানায় নেয়া হয়।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে শিশুটির দাদী নজরুল ইসলামকে আসামী করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। ওই মামলায় পুলিশ গিয়ে নজরুল ইসলামকে গ্রেফতার করে থানায় নেয়। পরে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে জানান মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা এসআই কামরুজ্জামান।

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত বাগমারা থানায় অফিসার ইনচার্জ আতাউর রহমান বলেন, ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং আসামীকেউ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।
বরেন্দ্র বার্তা/ সরা/ নাসি

Close