নাগরিক মতামত

ভালোবাসার রদবদল

জান্নাতুল ফেরদৌস

 

সদ্য তেরো পেড়িয়ে কিশোরী থেকে আসতে আসতে নারী হয়ে ওঠার পেছনে বেশ বড়সড় গল্প থাকে।
আজকের কুড়ি পেড়িয়ে একুশের তরুণী হয়ে যাওয়ার পেছনের ইতিকথা সবার জানা থাকে না।সেই কিশোরী থেকে তরুণী আর তরুণী থেকে আজকের নারীর এ রুপান্তরের মাঝে এসেছে অনেক বসন্ত।
এসেছে সমাজের বানানো বেশ কটি প্রচলিত দিনক্ষন, যেদিন একটি বারের জন্য হলেও মন আর মস্তিষ্কের একটা নিশব্দ বিরোধ বেঁধেছে।ভালোবাসায় মন কারো জন্য যেমন সিক্ত হয়েছে তেমনি হয়েছে ক্ষত বিক্ষত। প্রস্তরঘাতে বিদ্ধ হয়ে কখনো থেমে গেছে।আর কখনোবা হুট করেই সব নতুন সাজে সেজেছে।
সেই কিশোরী বয়সের হুট করেই প্রবল আবেগে চুমু খাওয়ার দৃশ্যপট যেমন ছিলো ক্ষ্যাপাটে।আজ সেই কিশোরীর যাত্রা শেষে আস্ত নারীর নির্লিপ্ত সংগোপনে রাশভারি হয়ে আলতো চুমুর মধ্যে তেমন পার্থক্য বা বিরোধ নেই।শুধু ঠোঁট দুটো বদলে গিয়ে বর্নিল আলাপনের সূত্রপাত ঘটিয়েছে এই যা।
আমি তোমায় ভালোবাসি, এই এক লাইনের জবানবন্দিতে কারো প্রতি মুগ্ধতার মাত্রার একটা সূক্ষ্ম তারতম্য ঘটেছে এতশত বছরে। আকুলতা প্রকাশের ধরন বদলে গিয়ে জন্মেছে ধীরতা আর নতজানু হবার এক বেখেয়ালি আচরণ।
তবে উপস্থাপনে আজও নিজেকে সাজাতে কমতি নেই।কখনোই যেন থাকে না।প্রতিবারের রেশ আর আদ্রতার মাত্রা যেন প্রথমবারের মতই নির্মল আর বিশুদ্ধতায় ভরা।শত অভিযোগ আর অভিমানের পরেও যেন সিক্ত,অনুরিক্ত।শব্দগুলো যেনো আজও শতবর্ষ রক্তক্ষরণ এ চিতকার করে বলে “ভালোবাসি, ভালোবাসি”।
অশুভ সকল কিছু বিতাড়িত করে মৃদংগ বিহনে এই ফাল্গুনে বেজে উঠুক সবার মনের সুরের মিলিত ঐকতান।সবার জীবনে নেমে আসুক শুদ্ধতম শুভ্র ভালোবাসা।

Close