সাহিত্য ও সংস্কৃতি

অয়ময়

হুমায়ূন সিরাজ

সুদূরে সমুদ্রের কোন বেলাভূমিতে যেন সুবিশাল ইজেল
দক্ষিণ মুখে দাঁড়িয়ে কোন চিত্র শিল্পী হওতো
হাতে রঙ তুলি নিয়ে
চিত্রপটে ছবিতে…
হঠাৎ…
কোথাও কখনও মুক্তিযোদ্ধারা যেন কুচকাওয়াজের সুরে
আর কেউ কেউ কখনো সৈকতে পাড়ি
কিন্তু হঠাৎ ঘড়িতে এলার্মের সুর
যেন কেউ পল্লবে ঢাকা কোন হিজলের বনে
পূর্ব আকাশে কোন লাল টক্টকে সুর্র্য্যি ঘনঘটায়
উৎকণ্ঠায় কোন ভুতুড়ে পরিবেশ
আর সমুদ্রে সফেদ সফেন কোন ঊর্মিমালা
ওই নৌকাগুলোতে যেন মানচিত্র খঁচিত লাল সবুজের পতাকা
কখনও কেউ কেউ নিশ্চিন্তে মুক্তিযোদ্ধাদের মত
কোন জুজুৎসু বা কোন মুক্তি প্রত্যাশায়
আবার কেউ কেউ তীরহারা ঢেউয়ের সাথে ওই সাগরে পাড়ি
কিন্তু সকাল গড়িয়ে যেন গোধূলী তারপর রাত্রি
কোন জন জীবন যেন গরমে অতিষ্ঠ
আর কাঁদের যেন সবুজ কোন গালিচায় বসতি
কোথাও একদল সন্নাসী কেন যেন লাল কাপড়ে মোড়া
আর উল্লাসে কেউ যেন মুক্ত এলাকায় উর্ধ্ব শূন্যে ছুড়ছে গুলি
তাঁদের মুখে আছে ছন্দবেশি মুখোশ
আর মাথায় দড়িবাধা সবুজ হেলমেট
কিন্তু তাদের নিশ্বাস কেন যেন কোন শত্রুর অসমৃণ অসচ্ছ মুখোশে ঢাকা
কোথাও তাঁদের মুক্তি যেন ডাক্তে
সুদূর পানে দেবতার প্রাণে
আর দোয়েল যেন অট্টালিকার নিকষে
কোন রঙধনুতে কেন দেবদূতেরা ওই আর জি বি পাখায় বন্দি
আর কোথাও বাউলেরা যেন মুক্ত বুদ্ধির
যেন রাইফেল কাঁধে সুরে সুরে খোপে
ওহে মনের সাথে নৈসর্গের যে কী মিল
যেন আধ্যাতিক অয়ময়ে রহস্যে
কোথাও কোন বায়টিক রানার ছুটেছে রোবটের মত
এই স্বাধীন দেশের কোন শান্তির বার্তায় মুক্তির বার্তায়
আর দেশে দেশে প্রতিনিয়ত বিজয়ের সম্মতি
মুক্তি উর্ধ্ব আকাশে
কোন প্রার্থনালয়ে ভাসছে প্রার্থনার সুর
কারো কারো চিৎকার পানি পানি বলে
কোন শুষ্ক চৌচির ফসলের মাঠে
কোন পুকুর নদী সাগরের জলে
বাষ্পীভূত মেঘ যেন পুঞ্জিভূত
ওই সুদূরে বৃদ্ধি জলধরে
হঠাৎ জল ধারায় জাগছে বন্ধ্যা ফসল
কোন ঝড়ে মেঘে মেঘে বৃষ্টি
চিত্রিত এই ছবিগুলো যেন চিত্রপটের মত
অদৃষ্ট্যতার ত্রিমাত্রিক চিত্র।

Close